১২:৩৫ এএম, ২৩ নভেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | | ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

অন্যমনস্ক জীবন

২৮ অক্টোবর ২০১৭, ১১:১৪ এএম | নিশি


এসএনএন২৪.কম : প্রায়ই কাজ ভুলে যাওয়া, মিটিং মিস করা, কথা বলতে বলতে অন্যমনস্ক হয়ে যাওয়া, কাজের ফোকাস হারিয়ে ফেলা, হাতে কাজ জমে থাকলেও কিভাবে কি শুরু করতে হবে প্ল্যান করতে না পেরে কাজ ফেলে রাখা ইত্যাদি সমস্যাগুলি কি আপনার প্রায়ই হয়? কম বেশি হয়তো সবাই এমন কিছু সমস্যার মুখোমুখি হন।  কিন্তু এগুলো যদি আপনার দৈনন্দিন জীবনের উপর উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে থাকে, তাহলে সম্ভবত আপনি এডিএইচডি-তে ভুগছেন। 

Attention Deficit Hyperactivity Disorder বা এডিএইচডি একটা নিওরোডেভলাপমেন্ট ডিজিজ।  এই অসুখ মূলত বাচ্চাদের হয় এবং এর লক্ষণ গুলো সাধারণত বয়সের সাথে অনেক সময় কমে যায়।  তবে কিছু প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে এ.ডি.এইচ.ডি-র প্রধান লক্ষণগুলি রয়ে যায় যা প্রতিদিনের কার্যকারিতায় হস্তক্ষেপ করে, বিশেষ করে তাদের কাছে দৈনন্দিন কাজগুলোকে অনেক কঠিন/চ্যালেন্জিং মনে হতে পারে। 

প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে, এডিএইচডি এর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি হতে পারে মনোযোগের অভাব, অতিরিক্ত আবেগপ্রবণতা এবং অস্থিরতা। 

এই প্রতিবন্ধকতাগুলো নিয়ন্ত্রণে রাখতে না পেরে অনেকেই খারাপ মেজাজ, ক্রোধ, হতাশা ও বিষন্নতার মতো মানসিক বিপর্যয়ে ভোগেন।  এডিএইচডি-র লক্ষণ হালকা থেকে গুরুতর বিভিন্ন রকম হতে পারে।  চলুন দেখে নেই লক্ষণ গুলো কি কি:

অতিরিক্ত আবেগপ্রবণতা। 
গরম মেজাজ। 
মানসিক চাপ একেবারেই সহ্য করতে না পারা। 
একটা কাজ সম্পুর্ন না করেই অন্য কাজ শুরু করে দেয়া। 
কোন কিছুতে গভীরভাবে মনোনিবেশ করতে না পারা। 
ধারাবাহিক নির্দেশনা বা কার্য ক্রম অনুসরণ করতে না পারা। 
চারপাশে হওয়া ঘটনা ভুলে যাওয়া।  যদিও মনে হয় ঘটনাগুলো তারা ভুলে যাচ্ছে কিন্তু আসলে পর্যাপ্ত মনোযোগ না দেয়ার কারণে তারা ঘটনাগুলো মনে করতে পারেনা। 
সামান্য শব্দ বা গোলমালেই নিজের কাজ থেকে ডিস্ট্রাক্টেড হয়ে যাওয়া। 
অধিক মনোযোগ প্রয়োজন এমন কাজ এড়িয়ে যাওয়া। 
কোন কাজে নির্দেশনা না পরেই কাজ শুরু করার জন্য তাড়াহুড়া করা। 
জিনিশপত্র হারিয়ে ফেলা।  কোথায় কি রাখলো মনে করতে না পারা। 
সেমিনার/মিটিং/ক্লাস-এ মনযোগ ধরে রাখতে না পারা। 
ধৈর্য বা সহনশীলতার অভাব। 
পরিণাম এর কথা চিন্তা না করেই কাজ করে ফেলা। 
খারাপ অভিজ্ঞতা বা ভুল থেকে শিক্ষালাভ না করা। 

কখন ডাক্তার দেখাবেন:
উপরে উল্লিখিত উপসর্গগুলি যদি কোনভাবে আপনার জীবনকে ব্যাহত করে, আপনার এডিএইচডি আছে কিনা তা নিয়ে আপনার ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলুন।