৯:১০ এএম, ২৩ অক্টোবর ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১২ সফর ১৪৪০


অস্ত্র উদ্ধারে ঢাকা বিভাগে দ্বিতীয় হলো রাজবাড়ী

১৩ জানুয়ারী ২০১৮, ০৬:২২ পিএম | সাদি


এম, মনিরুজ্জামান, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারে ঢাকা বিভাগের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছেন রাজবাড়ী জেলা পুলিশ।  এর পুরুষ্কার হিসেবে বুধবার দুপুরে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার সালমা বেগম পিপিএম-এর হাতে আনুষ্ঠানিক ভাবে ক্রেস্ট তুলে দিয়েছেন, মহা পুলিশ পরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক বিপিএম, পিপিএম। 

ওই দিন রাজধানী ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনে “শিল প্যারেড ও আইজিপি পদক প্রদান অনুষ্ঠানে ওই ক্রেস্ট তুলে দেয়া হয়।  সে সময় বাংলাদেশ পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।  

জানাগেছে, “মোর নাম এই বলে খ্যাত হোক আমি তোমাদেরই লোক”-এ উক্তিকে বুকে ধারণ করে নারী বান্ধব, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, বাল্যবিয়ে, ইভটিজিং ও মাদকমুক্ত রাজবাড়ী জেলা গড়ার প্রত্যয় নিয়ে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার সালমা বেগম পিপিএম (সেবা) মাত্র এক বছর পূর্বে রাজবাড়ীতে যোগদান করেন।  তিনি রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদানের পর আরো বেশি গতিশীল হয়েছে জেলা পুলিশ।  তার সাহসী ও গতিশীল নেতৃত্বে অভূতপূর্ব সাফল্য দেখিয়েছে জেলার ৫টি থানা ও জেলা গোয়েন্দা শাখার পুলিশ সদস্যরা। 

স্বল্প এই সময়কালে ৬৬টি অস্ত্র, ৭৫ রাউন্ড গুলি, দেড় কোটি টাকা মূল্যের বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে।  সেই সাথে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৮৬৫ জন।  এর মধ্যে অস্ত্র আইনে ৪৫টি মামলা দায়ের হয়েছে।  ওই মামলা গুলোর বিপরীতে ওয়ানসুটার গান ৩৮, বিদেশী রিভলবার ৩টি, দেশি রিভলবার ১টি, বিদেশী পিস্তল ২টি, দেশি পিস্তল ১টি এবং অন্যান্য অস্ত্র ২২টি, সেই সাথে ২৩ রাউন্ড গুলি ও ৫২ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।  ৫৪জন আসামির মধ্যে ৪৮ জনকেই গ্রেপ্তার করা সম্ভভ হয়।  একই সময়ে ১টি ককটেলসহ ১জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

অপরদিকে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে রাজবাড়ীর ৫টি থানায় ৭০৪টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।  ওই সব মামলার ৮৬৪ জন আসামির মধ্যে ৮১৭ জনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  আসামিদের কাছ থেকে ৭৬ লাখ ৪৯ হাজার ৩শত টাকা মূল্যের ২৫ হাজার ৮২পিচ ইয়াবা, ৪ লাখ ৮১ হাজার ৯শত ৬৫ টাকা মূল্যের ৫৮ কেজি ১৩৩গ্রাম ৩৫ পুড়িয়া গাঁজা, ৪১ লাখ ৯৪ হাজার ৮০ টাকা মূল্যের ৫৩০.৩৭ গ্রাম ২৭৩ পুড়িয়া হেরোইন এবং ২২ লাখ ৮ হাজার ৮শত টাকা মূল্যের ২ হাজার ৪শত ৩৫ লিটার ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। 

ক্রেস্ট পাওয়ার পর  বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জেলা পুলিশের সকল সদস্যের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার সালমা বেগম পিপিএম  বলেন, রাজবাড়ী জেলা বাসীকে সাথে নিয়ে এবং জেলা পুলিশের প্রতিটি সদস্যের কর্মতৎপড়তার কারণে অস্ত্র উদ্ধারে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে রাজবাড়ী।  এটা রাজবাড়ী বাসীর জন্য পরম পাওয়া এবং তার জন্য অত্যন্ত মর্যাদার ও গর্বের ব্যাপার।  ভাল কাজের জন্য পুরস্কার পাওয়ায় তিনি আরো বেশি উজ্জীবিত।  তিনি রাজবাড়ীর প্রতিটি মানুষের সহযোগীতা ও দোয়া কামনা করেছেন।