১১:০৩ এএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ২৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

আবারও অশান্ত নাটোরের রাজনীতি

০৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ০২:৪৪ পিএম | সাদি


মোঃ রাশেদুল ইসলাম, নাটোর প্রতিনিধি : নাটোরে সদর থানা ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক রবিউল ইসলাম রুবেল সহ দু’জন গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় জেলা আওয়ামীলীগ ও বিএনপি একে অপরকে দায়ী করে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচী পালন করছে।  বিএনপি গত মঙ্গলবার(৫ ডিসেম্বর) সংবাদ সম্মেলন করে ঘটনার জন্য আওয়ামীলীগকে দায়ী করেছে।  তাদের দাবী, বিএনপির কেন্দ্রিয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সভাপতি রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর সহধর্মিনী ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি সাবিনা ইয়াছমিন ছবিকে হত্যার উদ্দেশ্যে দুলুর বাড়িতে ছাত্রলীগ কর্মীরা হামলা চালায়। 

আগামী নির্বাচন থেকে বিএনপিকে দূরে সরিয়ে রাখতে এই হামলা চালানো হয়েছে, যা নাটোরের জনগণের কাছে প্রকাশ হয়ে পড়েছে বলে দাবী করেন বিএনপি নেতৃবৃন্দ।  অপরদিকে আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের অভিযোগ উন্নয়ন ও শান্তির নাটোরকে অশান্ত করতে পূর্ব পরিকল্পনানুযায়ী ছাত্রলীগের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীর ওপর এই হামলা চালানো হয়েছে। 

হঠাৎ করেই নাটোরের রাজনীতিতে উত্তেজনা দেখা দেওয়ায় উদ্বেগ ছড়িয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।  ২০১৫ সালের পর রাজনীতির মাঠে তেমন কোন বড় কর্মসূচী নিয়ে পাল্টাপাল্টি অবস্থানে আসেনি বড় দুই দল।  গুলিবর্ষনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলামের দায়ের করা অভিযোগটি মামলা হিসেবে নেয়নি সদর থানা পুলিশ।  তবে ৫ডিসেম্বর(মঙ্গলবার) রাতে সদর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক হুমায়ুন কবীর বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৩০/৪০ জন বিএনপি কর্মীর নামে মামলা দায়ের করেছে। 

গত ৩রা ডিসেম্বর শহরের আলাইপুরস্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে গুলিবর্ষণের ঘটনার পর পরদিন ৪ঠা ডিসেম্বর জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম বাদী হয়ে দুলুপত্নী সাবিনা ইয়াসমিন ছবিকে হুকুমের আসামী করে মোট ২৪ জন বিএনপি-ছাত্রদল নেতাকর্মীর নামে অভিযোগ দায়ের করেন।  অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ডভুক্ত হয়নি এখনও।  অপরদিকে ৫ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার) শহরের আলাইপুরস্থ জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জেলা বিএনপির সহ সভাপতি গোলাম সারোয়ার অভিযোগ করে বলেছেন, ছাত্রলীগ গত ৩ ডিসেম্বর বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর সহধর্মিনী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি সাবিনা ইয়াসমিন ছবিকে হত্যার চেষ্টা করে। 

তাদের সে চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় এবার দুলু পত্নী সাবিনা ইয়াসমিন ছবির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।   দুলুর আকাশচুম্বি জনপ্রিয়তার ভয়ে এভাবে মামলা দিয়ে দুলুকে যেভাবে নির্বাচন থেকে দূরে রাখা হয়েছে, এবার তার পত্নী সাবিনা ইয়াসমিন ছবিকেও নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্য তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়েছে।  আগামী নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত জেনে ভোটার বিহীন নির্বাচনে জয়ী আওয়ায়ামীলীগ নেতারা ঘোলা জলে মাছ শিকার করতে গিয়ে এবার নিজেরাই জনগনের কাছে ধরা পড়েছে।  ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবী জানান বিএনপি নেতৃবৃন্দ। 

এদিকে বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে আনা অভিযোগের পাল্টা জবাব দিতে গিয়ে আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ বলেছেন, এমপি শফিকুল ইসলাম শিমুলের নেতৃত্বে যখন নাটোরের রাজনীতিতে শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজমান, তখন শান্তির নাটোরে আবারো অশান্তির আগুন জ্বালাতে চায় বিএনপি নেতারা।  তাই পূর্বপরিকল্পিতভাবে ছাত্রলীগের সমাবেশে গুলিবর্ষণ করেছে বিএনপির কর্মীরা"- এমন অভিযোগ করেন জেলা আওয়ামীলীগ সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক সৈয়দ মোর্তুজা আলী বাবলু ও দপ্তর সম্পাদক দিলীপ কুমার দাস। 

অপরদিকে নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল এসব অভিযোগকে মিথ্যাচার ও বানোয়াট দাবী করে বলেছেন, বাংলাভাই সৃষ্টিকারী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু যে নাটোরকে করেছিলেন সন্ত্রাসের জনপথ।  সেই নাটোর এখন উন্নয়ন ও শান্তির নাটোরে পরিনত হয়েছে।  শান্তির নাটোরকে আবারও সন্ত্রাসের জনপদ হিসেবে বিশ্বব্যাপী পরিচিত করতেই পরিকল্পনা অনুযায়ী ৩ ডিসেম্বর ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের ওপর গুলিবর্ষণ করা হয়।  দুলুর সহধর্মিনী সাবিনা ইয়াসমিন ছবির গাড়ির চালক হলি অর্টিজমে জঙ্গি হামলায় জড়িত।  একারনে ওই চালককে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়।  নাটোরে  আবারও অশান্তির আগুন জ্বালাতে দুলুর নির্দেশ ও তার স্ত্রীর নেতৃত্বে ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের ওপর গুলি চালানো হয়েছে। 

নাটোর সদর উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সোহানুর রহমান সুরুজ বলেন, এবার তারা দ্রুত জড়িতদের গ্রেফতার দেখতে চান। 

নাটোর সদর সার্কেলের পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মামলাটি গুরুত্বের সাথেই বিবেচনা হচ্ছে।  তদন্ত করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে। 

নাটোর শহরের শান্তি বজায় রাখতে বড় দুই দলকে শান্তিপূর্ণ ও অহিংস উপায়ে রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার আহব্বান জানিয়েছেন নাটোরের সাধারণ জনগণ।