১২:৫৫ এএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার | | ২৩ মুহররম ১৪৪১




‘আম্রকাননে যে অস্থায়ী সরকার গঠিত হয়েছিল ইতিহাসে তা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে’

২০ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:৪০ এএম | জাহিদ


মুহাম্মদ এনাম হোসাইন, ইউএই : বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল দুবাইয়ের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদায় কনুস্যলেট প্রাঙ্গণে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস’ উদযাপিত হয়েছে। 

দিবসটি উপলক্ষে কনস্যুলেটে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।  প্রথমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন করা হয়।  আলাচনা সভা শুরুর প্রথমে কোর আন তেরোয়াত পাঠ করেন কনসুলেটের কর্মকর্তা সিরাজুল মোস্তফা।  এর পর সবাই দাড়িয়ে জাতিয় সঙ্গিত পরিবেশন করেন। 

পরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ইতিহাসের উপর প্রমান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।  দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করেন কমার্শিয়াল কাউন্সির ড. এ কে এম রফিক আহম্মেদ ও কাউন্সিলর শ্রম ফাতেমা জাহান ।  পরে শুরু হয় আলোচনা সভা।  সভায় কনস্যুলেটের দুতালয় প্রধান প্রবাস লামারং এর উপস্থাপনায় দিবসটির গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে কনসুলেট জেনালের ইকবাল হোসাইন খান উপস্থিত প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য প্রদান করেন। 

এ সময় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রথম সচিব ( শ্রম) ফকির মনোয়ার হোসেন, প্রথম সচিব পার্সপোর্ট ও ভিসা মিস নুর-এ-মাহাবুবা জয়া সহ কনস্যুলেটের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।  এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর আন্দুস সবুর, আবু নাছের, আবু হেনা, মোঃ সেলিম, কাওছার নাজ, হাজী শফিকুল ইসলাম, আয়উব আলী বাবুল, মোঃ মনির, শাহ মোহাম্মদ মাকসুদ, বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব এর সিনিয়র সহ-সভাপতি সিরাজুল হক,আইন বিষয়ক সম্পাদক সানজিদা ইসলাম, মাহবুব হাছান, খন্দকার মিজানুর রহমান, শিমুল মোস্তফা, ফরিদ রেজা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের, ফাহাদ আলী ফাহাদ সহ অনেকেই। 

মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনায় সভায় বক্তারা বলেন, ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে যে অস্থায়ী সরকার গঠিত হয়েছিল তা জাতির ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।  চরম দুঃসময় ও এক ক্লান্তিলগ্নে সেদিন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম সরকার শপথ নিয়ে দেশবাসীকে আশার আলো দেখিয়েছিল ও মহান মুক্তিযুদ্ধে দিক নির্দেশনা দিয়েছিল। 

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সেদিন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করা হয়।  সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপরাষ্ট্রপতি এবং বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত করা হয়। 

সেদিনের সরকারের শপথ নেওয়া জাতীয় চার নেতা তাজউদ্দীন আহমদ, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও এইচ এম কামরুজ্জামানকে জাতি যুগ যুগ ধরে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে।  দেশের জন্য তাদের অবিস্মরণীয় অবদান থেকে নতুন প্রজন্মকে শিক্ষাগ্রহণ করতে হবে। 

এ সময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের সব শহীদদের জন্য বিশেষ দোয়া করা হয়।  এছাড়া দেশ ও জাতির সার্বিক সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করেও দোয়া করা হয়।  অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি কমিউনিটির বিভিন্ন ফোরামের নেতৃবৃন্দ, পেশাজীবী, ব্যবসায়ী সহ নানা শ্রেণী-পেশার প্রবাসীরা অংশগ্রহণ করেন। 


keya