১১:০৩ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০১৯, রোববার | | ২০ সফর ১৪৪১




কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের স্টুডেন্টস ক্যাফেটেরিয়া উদ্বোধনকালে

ইচ্ছা, সততা এবং সাহস থাকলে কঠিন কাজ সুসম্পন্ন করা যায় : চবি উপাচার্য

২৯ মে ২০১৯, ০৪:২০ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, পরিবর্তনের আকাংখা, কর্তব্য কাজে সততা এবং বাস্তবায়নে সাহস এ তিনটি গুণের অধিকারী হলে সকল অসম্ভবকেই সম্ভব করা যায়। 

এই তিনটি গুণে দীক্ষিত হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন সকল অশুভ শক্তির রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে দৃঢ় চিত্তে কাজ করে যাচ্ছে।  পঠন-পাঠনসহ জ্ঞান-গবেষণার ধারাকে অবিরাম গতিতে প্রবাহমান রাখতে যেকোন ধরণের উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং এর সঠিক বাস্তবায়নে বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন কখনো পিছপা হয়নি।  যার সুফল শিক্ষক-গবেষক এবং শিক্ষার্থীরা ইতোমধ্যেই পেতে শুরু করেছে। 

বিগত চার বছরে একদিনের জন্যও বিশ্ববিদ্যালয় অনাকাংখিত বন্ধ হয়নি, সাড়ে ছয় বছরের সেশন জট এখন শুন্যের কোটায়, গবেষণা খাতে বরাদ্দবৃদ্ধি, প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য ই-লার্ণিং সেন্টার চালু, আইসিটি সেল ও বিশ্ববিদ্যালয় ওয়েভপোর্টালের আধুনিকায়ন, মেডিকেল সেন্টারের আধুনিকায়নসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি কর্ণারে উন্নয়ন আজ দৃশ্যমান।  ২৯ মে চবি কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ‘স্টুডেন্টস ক্যাফেটেরিয়া’ উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন। 

এ সময় কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মহীবুল আজিজ, জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. মাহবুবুর রহমান, শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর মো. জাকির হোসেন, বিভিন্ন বিভাগের সভাপতি ও ইনস্টিটিউটের পরিচালকবৃন্দ, সম্মানিত শিক্ষকবৃন্দ, অফিস প্রধানবৃন্দ এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।   

উপাচার্য তাঁর ভাষণে উপস্থিত সকলকে স্বাগত এবং পবিত্র ঈদুল ফিতরের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, সততা-দক্ষতা-জবাবদিহিতা এবং সৎ সাহসিকতার সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন শিক্ষক-গবেষক এবং শিক্ষার্থীদের কল্যাণে একের পর এক উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করছে।  তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের মানসম্মত খাবার নিশ্চিত করা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অন্যতম দায়িত্ব।  উপাচার্য এই ক্যাফেটেরিয়া প্রতিষ্ঠার ফলে শিক্ষার্থীদের সময়মতো মানসম্মত খাবারের দূর্ভোগ লাঘব হবে মর্মে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।