১১:৫৭ পিএম, ২৪ আগস্ট ২০১৯, শনিবার | | ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং চুয়েট শাখার উদ্যোগে বিশ্ব নারী দিবস উদযাপন

১৯ মার্চ ২০১৯, ০৪:০২ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এ ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারদের সমন্বয়ে গড়া বিশ্বের সর্ববৃহৎ পেশাজীবী সংগঠন Institute of Electrical and Electronics Engineers (IEEE)-এর উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং (ডওঊ) এফিনিটি গ্রুপের আয়োজনে Women's Day Celebration Through Tech-Activities শিরোনামে বিশ্ব নারী দিবস উদযাপিত হয়েছে। 

এ উপলক্ষ্যে অদ্য ১৯ মার্চ (মঙ্গলবার), ২০১৯ খ্রি. দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক্যাল এন্ড মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (ইএমই) ভবনের সামনে থেকে এক আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়।  এতে নেতৃত্ব দেন চুয়েটের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম।  এ সময় যন্ত্রকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দীন আহম্মদ এবং ওঊঊঊ এবং ডওঊ-এর চুয়েট শাখার সদস্যবৃন্দ র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন। 

র‌্যালিটি ইএমই ভবন থেকে শুরু হয়ে পুরকৌশল ভবন ও পুরনো প্রশাসনিক ভবন হয়ে পশ্চিম গ্যালারির সামনে এসে শেষ হয়।  পরে দুপুর ১২ ঘটিকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিম গ্যালারিতে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।  

এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, একটি দেশকে এগিয়ে নিতে হলে দেশের নারী জনগোষ্ঠীকে কাজে লাগাতে হবে।  বর্তমানে সারাবিশ্বে তথ্যপ্রযুক্তির বিপ্লব চলছে।  চুয়েটে বর্তমানে প্রায় পাঁচ শতাধিক নারী প্রকৌশলী অধ্যায়নরত রয়েছে।  প্রতিবছর নারী শিক্ষার্থী ভর্তির হার বাড়ছে।  এটা অবশ্যই আশাব্যঞ্জক। 

চুয়েট ভিসি আরো বলেন, বিশ্বব্যাপী প্রকৌশলীদের সর্ববৃহৎ পেশাজীবী সংগঠন ওঊঊঊ।  চুয়েটে ওঊঊঊ-এর নারী শাখার কার্যক্রম প্রশংসার দাবিদার।  নারীরা যতবেশি কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করবে দেশ ততবেশি এগিয়ে যাবে।  তাই প্রযুক্তি খাতে নারীদের অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে।  

অনুষ্ঠানের শুরুতে উইমেন ইন ইঞ্জিনিয়ারিং এফিনিটি গ্রুপের চেয়ারপারসন জনাবা শিমন মেহজাবীন প্রযুক্তিতে আইইইই-এর মাধ্যমে নারীদের অবদান বিষয়ে একটি ভিডিওচিত্র উপস্থাপন করেন।  পরে বিকালে ‘Graphics Design & IEEE IAS Humanitarian Program’ শিরোনামে একটি টেকনিক্যাল সেশন এবং আইডিয়া ভিত্তিক পোস্টার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।  অনুষ্ঠানের টেকনিক্যাল স্পন্সর ছিল- নভেলটি ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন।  


keya