৪:১০ এএম, ৩০ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার | | ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২




ওএসডি হলেন সেই ইউএনও ওয়াহিদা, স্বামীকেও বদলি

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:১০ পিএম | নকিব


এসএনএন২৪.কমঃ নিজ বাসভবনে দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমকে বদলি করা হয়েছে। 

তাকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা করা হয়েছে।  তার স্বামী রংপুরের পীরগঞ্জে ইউএনও হিসেবে কর্মরত মো. মেজবাউল হোসেনকেও ঢাকায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগে জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব হিসেবে বদলি করা হয়েছে। 

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপনে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। 

ওয়াহিদা খানম ৩১ তম বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা।  তাঁর স্বামী মেজবাউল হোসেনও একই ব্যাচে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা। 

গত ২ সেপ্টেম্বর মধ্যরাতে ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানম ও তার বাবাকে তার বাসভবনে দুষ্কৃতিকারী হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে।  ওয়াহিদা খানম বর্তমানে ঢাকা নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 


এদিকে শনিবার ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে হত্যাচেষ্টা মামলায় আদালতে ২ সাক্ষীকে হাজির করে কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় সাক্ষ্যগ্রহণ লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।  এ নিয়ে বিচারকের কাছে ৫ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। 

পুলিশের সার্বিক তদন্ত, আলামত এবং সাক্ষীদের জবানবন্দি অনুযায়ী ইউএনওয়ের বাড়ির মালি মূল হামলাকারী রবিউল ইসলাম।  পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থা-ডিবির তদন্তে এটিই প্রমাণিত হতে যাচ্ছে এ হামলার সঙ্গে রবিউল একাই জড়িত ছিল। 

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বেলা ১টায় পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান। 

তিনি বলেন, রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় রিমান্ড শেষে রবিউলকে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদানের জন্য আবার হাজির করা হবে। 

এ মামলায় সন্দেহজনকভাবে আরও ৪ জনকে আসামি হিসেবে গ্রেফতার করা হয়েছে।  গ্রেফতারকৃতরা দিনাজপুর কারাগারে রয়েছেন।  তারা হলেন- আসাদুল হক, নাহিদুল ইসলাম পলাশ, নবিরুল ইসলাম ও সান্টু কুমার দাস।