৮:২০ পিএম, ৮ আগস্ট ২০২০, শনিবার | | ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১




কোনো বাধাই এখন আর ওদের দমিয়ে রাখতে পারবে না’

০৯ জুলাই ২০২০, ১০:৩৯ এএম | নকিব


আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ কোনো বাধাই এখন আর ওদের দমিয়ে রাখতে পারবে না।  ওরা দুরন্ত-দুর্বার।  সব বাধা পেরিয়ে ওরা এগিয়ে চলবে সম্মুখপানে’। 

বুধবার বিকাল ৫টার দিকে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার চলবলা ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে নারী শিক্ষা উন্নয়নে দরিদ্র মেধাবী ছাত্রীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ করা হয়েছে। 

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রবিউল হাসান।  ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, ইউপি সদস্য বিপুল চন্দ্র, সমাজসেবক আবুল বাসার, সাংবাদিক আলতাবুর রহমান আলতাব, ইউপি সচিব আশীষ কুমার প্রমূখ। 

জানাগেছে , এ জেলার প্রত্যন্ত গ্রাম চলবলা ইউনিয়নে উচ্চ শিক্ষার নেই কোন প্রতিষ্ঠান।  এখানকার নারী শিক্ষার্থীদেও নানা বিড়ম্বনায় পায়ে হেটে অথবা  অটো ভ্যানে যেতে হয় কলেজে।  নারী শিক্ষাবিস্তারে শিক্ষার্থীদের দুর্দশা লাঘবে এগিয়ে এসেছে ইউনিয়ন পরিষদ।  কলেজ ছাত্রী মোরছালিনা, তুলসী বর্মা, বিউটি আক্তার, তৃষা রানী রায়।  এরা অসচ্ছল পরিবারের সন্তান হলেও মেধাবী।  মাধ্যমিক পেরিয়ে উচ্চ শিক্ষার জন্য  ৬/৭ কিলোমিটার দুরের কলেজে যেতে হয় তাদেরকে।   নারী শিক্ষা বিস্তারে তাদের মতো ১৫ জন শিক্ষার্থীদের মাঝে বাই সাইকেল বিতরন করা হয়।  সাইকেল পেয়ে তারা খুবই আনন্দিত। 

বৃষ্টি রায়, আলমা খাতুন,  নিলীমা রাণী, তমালিকাসহ আরও অনেক ছাত্রী জানায়, তারা সাইকেল চালাতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে থাকলেও পরিবারের অসচ্ছলতা থাকায় পায়ে হেটে বা অটো ভ্যানে কলেজে যেতে হতো।  চেয়ারম্যানের এ মহতি উদ্যোগে আমরা খুশি।  এতে সময়ের অপচয় কম হবে এবং শারীরিক ব্যায়ামেরও কাজ হবে। 

চলবলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু বলেন, ‘নানাবিধ সমস্যায় উচ্চ শিক্ষায় ব্যহত হয় দরিদ্র পরিবারের নারী শিক্ষার্থীদের।  এ কারনে তাদের কলেজ যাতায়ত সহজ করতেই ইউনিয়ন পরিষদের এই ক্ষুদ্র প্রয়াস অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি’। 

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও)  মো. রবিউল হাসান বলেন, ‘নারী শিক্ষার উন্নয়নে এটি ব্যাতিক্রম উদ্যোগ ।  নারীদের সামনের সারিতে এগিয়ে নিতে সকলের নারী শিক্ষা বান্ধব কর্মসূচি গ্রহন করা প্রয়োজন’।