৮:৪৯ এএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ৯ মুহররম ১৪৪০


কোম্পানীগঞ্জের গাংচিলে জমি দখল নিয়ে সংঘর্ষ অাহত ১৫

১০ জুলাই ২০১৮, ০৮:১৯ এএম | জাহিদ


কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি : সোমবার নোয়াখালীর কোম্পানিগঞ্জের চরএলাহীর গাংচিলে প্রতিপক্ষের জমি দখলকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী হামলায় জমির মালিক মোঃ খোকন ও তার স্ত্রীসহ অন্তত অাহত হয়েছে ১৫ জন। 

স্থানীয় এলাকাবাসীরা জানান, বেলা ১২টার সময় কথিত জমির মালিক ইসমাইল ও তার ভাড়াটে প্রায় শ'খানেক  সন্ত্রাসী বাহিনীরা হঠাৎ খোকন মিয়ার নিজ দখলী ও দলিলি বসতবাড়ির উপর হামলা চালায় এতে খোকন এবং তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম, মা সামসুন্নাহার, ছেলে রিয়াজ ও বাবলু, ভাই মাসুদ ও খালা খতিজাকে এলোপাথাড়ি মারধর করলে পার্শ্ববর্তিরা তাদের উদ্ধার করতে এগিয়ে অাসে, এতে সন্ত্রাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে সেলিম,ইউসুফ, ইব্রাহিম, অালেয়া বেগম,মাহফুজ,অজিফাসহ অন্তত ১৫ জনকে কুপিয়ে অাহত করে। 

পাশের বাড়ির মাঈন উদ্দিন ও হোসেন মিয়া বলেন অামরা ঘটনার প্রত্যক্ষকারী এবং  তারা জানান, গত ১৫/২০ বছর যাবত এ বাড়ি খোকনের এবং এ নিয়ে কখনো কোন কথা অামরা সুনিনি। 

হঠাৎ ইসমাইল মিয়া ২০১৪ সালে কি কাগজ নিয়ে এলাকায় হই হুল্লোড় করে এবং এ নিয়ে মামলা হয়েছে বলে অামরা জানি।  কিন্তু অাজকে হঠাৎ ইসমাইল ও এলাকার মাদক ব্যাবসায়ী রাজিবসহ তার বাহিনীর শতাধিক সন্ত্রাসীদের এ নারকীয় কর্মকান্ড চালায়। 

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চর এলাহি ইউনিয়ন (দক্ষিণ) অাওয়ামীলীগ সভাপতি বলেন, খোকন এ এলাকায় স্থায়ী বাসিন্দা  এবং  বাড়িটি ১৫/২০ বছর যাবৎ তার দখলে, কিন্তু হঠাৎ ইসমাইল একটি মামলার কাগজ নিয়ে অামার কাছে অাসলে অামি নিরপেক্ষ ভাবে বিচার করবো বললে সে অার অামার কাছে অাসেনি, কিন্তু উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) দ্বারা একপক্ষীয়ভাবে অবৈধ কাগজপত্র করে, এ নিয়ে অামি প্রতিবাদ করলে অামার ধারস্থ হয়নি। 

হঠাৎ সোমবার এলাকার শীর্ষ মাদক ব্যাবসায়ী ও একাদিক মাদক মামলার অাসমী রাজিবকে বাড়া করে তার নেতৃত্বে খোকনের ২টি বসতবাড়ি ভাংচুর ও লাক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায় এবং খোকনের পরিবারে সদস্যসহ অামার ওয়ার্ডের অন্ততপক্ষে ১৫ জন লোককে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে অাহত করে। 

এদিকে গ্রামবাসীদের সহায়তায়  অাহতদের সবাইকে নোয়াখালী জেনারেল হসপিটালে নিয়ে যাওয়া হয় এবং অাহত ৩/৪ জনের অবস্থা অাশংঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে নোয়াখালী জেনারেল হসপিটালের কর্তব্যরত চিকিৎসক। 

সরিজমিনে গিয়ে এ ব্যাপারে অাইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোন তৎপরতা লক্ষ করা যায়নি।