১১:০৫ এএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ২৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

‘কমিশনার শিরিনের জামিন না মঞ্জুর'

০৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ০২:২৯ পিএম | সাদি


সাকলাইন শুভ, বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি : নাটোরের বনপাড়া শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব মহিলা অনার্স কলেজের সমাজবিজ্ঞান বিষয়ের প্রভাষক ফারহানা সাথীকে মারধর এবং তার বাসায় ভাংচুরের অভিযোগে গত শনিবার বড়াইগ্রাম থানায় দায়ের করা মামলায় সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর শরিফুন্নেসা শিরিনের জামিনের অাবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট অামলী আদালত বড়াইগ্রাম।  ৬ ডিসেম্বর (বুধবার) দুফরে বিচারক জনাব মোঃ খোরশেদ অালম এ নির্দেশ দেন। 

এদিকে গত রবিবার অভিযুক্ত কাউন্সিলরকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবীতে ইউএনও বরাবর স্মারক লিপি প্রদান এবং প্রতিবাদ সভা করেছে কলেজের সকল-শিক্ষক কর্মচারী। 

বনপাড়া শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব মহিলা অনার্স কলেজের অধ্যক্ষ ও জেলা অাওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ উন্নয়ন সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা বলেন, শিরিন একজন জনপ্রতিনিধি আসন্ন নির্বাচনেও সে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী।  তার নিকট থেকে এ ধরণের আচরন মোটেও কাম্য নয়।  তার প্রার্থীতা বাতিলসহ কঠিন শাস্তি হওয়া উচিৎ।  এ ধরণের নারী সমাজের জন্য ভয়ঙ্কর।  তার কাছে কোন নাগরিক নিরাপদ নয়। 

বনপাড়া পৌর অাওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও সাবেক বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান এ ঘটনার প্রেক্ষিতে তার ফেসবুকে লিখেছেন- "পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলার শিরিন এর তান্ডবলীলায় অতিষ্ট পৌরবাসী।  বুধবার সন্ধায় তার ৩নং তথাকথিত স্বামীর বিবাহিত স্ত্রী মহিলা কলেজের প্রভাষক সাথীর বাসভবনে ঢুকে হত্যার উদ্দেশ্যে মার ধর করে, শ্বাসরোধ করে হত্যা চেষ্টার সময় তার পাচ বছর বয়সী মেয়ের চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে বাসার টিভি, ফ্রিজ সহ কয়েক লক্ষ টাকার আসবার পত্র ভাংচুর করে পালিয়ে যায়।  এ সময় তার সাথে ৩/৪জন যুবতি মেয়ে ছিল,যাদের কে তার নিজ বাসায় রেখে দীর্ঘ দিন অসামাজিক কর্মকান্ড করে আসছে।  আমরা এই মক্ষিরাণীর দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি,ও তার সকল অপকর্মের বিচার চাই। আর কারো স্বামীকে যেন ছিনতাই করতে না পারে। 

বড়াইগ্রাম উপজেলা যুব মহিলা লীগ নেত্রী ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সরদারের সহধর্মিনী সুরাইয়া কলি জানান- বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীর কাছে এবিষয়ে সহায়তা চাইলে তিনি অশ্লীল ভাষায় বলেছেন-দৌড়াদৌরি করে লাভ হবেনা শিরিনের একটা বালও কেউ ছিরতে পারবেনা, শিরিন এবারো কমিশনার হবে।  এছারা যুব মহিলা লীগের এই নেত্রী তার ফেসবুকে লিখেছেন- "বনপারা পৌরসভার ৮,৯ ও ১০ নং ওয়ার্ডের  মহিলা কাউন্সিলর শরিফুন্নেসা শিরিন (পতিতালয়ের নেত্রী) দ্বারা লাঞ্ছিত শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা অনার্স কলেজের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ফারহানা সাথী।  এই কুলাঙ্গার মহিলার জন্য যুব সমাজ আজকে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে। 

এই শিরিন(পতিতালয়ের নেত্রি) কাল সন্ধ্যায় ফারহারা সাথীর বাড়িতে গিয়ে মারধোর সহ লুটপাট করে।  যে কিনা অনেকের সংসার ভাংগার কারিগর।  আমরা এই অন্যায়কারীর যথাযথ শাস্তি চাই।  আর জেন কারও সংসার না ভাঙে কেউ জেন  এর প্রতারনার স্বীকার না হয়।  এই মহিলাকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য সকলের কাছে সাহায্য প্রত্যাশিত আমরা"