৩:০২ পিএম, ১৮ আগস্ট ২০১৯, রোববার | | ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




কলারোয়ায় ডা: শফিকুলের বিরুদ্ধে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে গণদরখাস্ত

২৯ মে ২০১৯, ১০:০৯ এএম | জাহিদ


জুলফিকার আলী, কলারোয়া (সাতক্ষীরা) : কলারোয়া সরকারী হাসপাতালের ভিতরে প্রস্তাবিত মসজিদ পূর্ণ নির্মানের জন্য যে জায়গা নির্ধাণ করা হয়েছে তা নিয়ে মসজিদ নির্মাণ কমিটির সভাপতি ডা: শফিকুল ইসলাম নানা অজুহাতে ঘাবলাবাজি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

এনিয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও মুসল্লিগণ লিখিত ভাবে তালা-কলারোয়ার সংসদ সদস্য, জেলা সিভিল সার্জন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে ২৬ মে অভিযোগ করেছেন। 

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে-সরকারী হাসপাতালের মেইন গেইট ও মূল রাস্তা রেখে হাসপাতালের ভিতরে একটি মসজিদ নির্মানের জন্য প্রস্তাব করা হয়।  সে অনুযায়ী হাসপাতালের  ভিতরে মসজিদ নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়।  এর মধ্যে মসজিদ নির্মাণ কমিটির সভাপতি ডা: শফিকুল ইসলাম হাসপাতালে ডিউটি থাকা অবস্থায় অধিকাংশ সময় কথিত মুন্না প্যাথলজি তে বসেন এবং পাটনার শিপে ব্যবসা করেন। 

যৌথ ব্যবসা সম্প্রারণ করার লক্ষে ই-ল্যাব ভাড়া মাসিক ৮হাজার টাকার স্থলে ৩০ হাজার টাকা দিয়ে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন।  সেই লক্ষ্যে হাসপাতালের মেইন রাস্তার ও গেইট সরাইয়া স্থায়ী ভাবে ই-ল্যাব সরসরি রাস্তা করার চেষ্টা করছেন।  ওযুধ ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম জানান-পূর্ব প্রস্তাবিত মসজিদের পশ্চিম পার্শ্বের বিল্ডিং এর গা হতে ৭ ফুটের স্থলে ৫ফুট রেখে সমজিদ নির্মাণ করলে মেইন রাস্তা ও গেইট বজায় থাকবে। 

ওষুধ ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান মিন্টু জানান- সুযোগে সৎ ব্যবহার, মসজিদ নির্মাণ নিয়ে রাজনীতির শুরু করেছে ডা: শফিকুল ইসলাম।  একই সাথে শান্তি শৃংখলা বজায় থাকবে।  কলারোয়া হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সদস্য সদস্য এড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, জেলা সিলিভ সার্জন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান  আমিনুল ইসলাম লাল্টু ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আর এম সেলিম শাহনেওয়াজের বিষয়টি দেখার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। 

এবিষয়ে ডাক্তার শফিকুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন-তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয়।  এখানে মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী কাজ হচ্ছে।  


keya