১:২৬ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

কুষ্টিয়ায় ২২৭টি পূজা মন্ডপে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত শিল্পীরা

১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৮:৫৪ পিএম | সাদি


এসএম জামাল, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : আসছে ২৬ সেপ্টেম্বর শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা।  এ উপলক্ষে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কুষ্টিয়ার শিল্পীরা।  দুর্গা পূজাকে ঘিরে কুষ্টিয়ায় চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি।  জেলার প্রতিটি মন্ডবে পুরোদমে চলছে প্রতিমা তৈরি ও মন্দির সাজানোর কাজ।  এবার কুষ্টিয়ায় ২২৭টি মন্ডবে দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। 

ইতোমধ্যে প্রায় প্রতিটি মন্ডবে দেবীর মূর্তি নির্মাণ শেষ হয়েছে।  এখন শুধু রঙ তুলির আঁচড়ে ফুটিয়ে তোলার অপেক্ষা।  সবমিলে প্রতিমা তৈরির শিল্পীদের এখন দম ফেলার সময় নেই।  জেলা পূজা উদযাপন কমিটির তথ্য মতে, এবারে কুষ্টিয়া জেলায় ২২৭টি পূজা মন্ডবে দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। 

এরমধ্যে সদর উপজেলায় ৭৬টি, কুমারখালী উপজেলায় ৫১টি, খোকসা উপজেলায় ৫৮টি, মিরপুর উপজেলায় ২৩টি, ভেড়ামারা উপজেলায় ৮টি এবং দৌলতপুর উপজেলায় ১১টি মন্ডবে পূজা হবে।  প্রতিমাশিল্পী শ্রী রাম প্রসাদ বলেন, প্রতিমা তৈরিতে এঁটেল ও বেলে মাটি ছাড়াও বাঁশ-খড়, দড়ি, লোহা, ধানের কুঁড়া, পাট, কাঠ, রঙ, বিভিন্ন রঙের সিট ও শাড়ি-কাপড়ের প্রয়োজন হয়।  প্রতিমাশিল্পী উজ্জল রায় বলেন, সারা বছর এই সময়ের জন্য অপেক্ষায় থাকি।  কারণ বছরের অন্য সময় তেমন কাজ না থাকলেও এই সময় ব্যস্ততা বেড়ে যায়।  তবে সময়ের সঙ্গে মানুষের জীবন যাত্রার ব্যয় বাড়লেও সে অনুপাতে প্রতিমা তৈরির মজুরি বাড়েনি। 

শ্রী জয়রাম নামে অরেক প্রতিমাশিল্পী জানান, দুর্গা পূজার দেড় মাস আগে থেকে বিভিন্ন স্থানে প্রতিমা তৈরির কাজ শুরু হয়েছে।  একটি বড় মূর্তি তৈরি করতে সময় লাগে পাঁচদিন।  অন্যদিকে এক একটি ছোট মূর্তি তৈরি করতে সময় লাগে তিনদিন।  বর্তমানে মূর্তি তৈরির কাজ প্রায় শেষ।  এরপর রঙের কাজ করা হবে।  সবকাজ শেষে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই মন্ডবের প্রতিমা বসানো হবে। 

শহরের প্রতিমাশিল্পী সুকান্ত পাল জানান, পূজা শুরুর আগেই প্রতিমা তৈরির কাজ সম্পন্ন করতে মৃৎশিল্পীরা বিরামহীনভাবে কাজ করছেন।  সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে তাদের কাজ।  অর্ডারমত প্রতিমাকে গড়ে তুলতে চেষ্টার কোনও কমতি নেই। 

শহরের থানা পাড়া সার্বজনীন পূজা মন্ডবের সাংগঠনিক সম্পাদক অঞ্জন বিষনো শিল শুভ বলেন, গত বারের চেয়ে এ বছর প্রতিমা তৈরির খরচ বেশি।  কুষ্টিয়া জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি নরেন্দ্র নাথ সাহা বলেন, ‘সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হচ্ছে শারদীয় দুর্গা পূজা।  প্রতি বছরের মতো এবারও এ উৎসবটি জাকজমকভাবে উদযাপন করা হবে।  এবার দেবী দুর্গার আগমন ঘটবে নৌকায় করে এবং গমন করবেন ঘোটকে (ঘোড়া) করে। ’

তিনি আরও বলেন, ‘এ বছর কুষ্টিয়ায় মোট ২২৭টি মন্ডবে দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে।  আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে জেলা প্রশাসকের উপস্থিতিতে শহরের নব যুব সংঘ মন্দিরে আনুষ্ঠানিকভাবে দুর্গা পূজার উদ্ধোধন করা হবে।  নির্বিঘ্নে পূজা পালন করতে প্রশাসন থেকে আমরা সার্বিক সহযোগিতা পাচ্ছি। ’