৪:৩৬ পিএম, ১৮ আগস্ট ২০১৮, শনিবার | | ৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯


গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ৮ বাংলাদেশি নিহত ও আহত ৭

১৪ এপ্রিল ২০১৮, ০৫:৪৩ পিএম | সাদি


সাগর চৌধুরী, সৌদি আরব প্রতিনিধি : সৌদি আরবের রিয়াদে স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল ৭.৩০ টায় রিয়াদের দাখেল মদুদ এলাকায় শ্রমিকদের বাসস্হানে দুর্ঘটনায় ৮ বাংলাদেশি নিহত ও আরো সাত জন আহত হয়েছেন।  ঘুমন্ত অবস্হায় থাকা কয়েকজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।  হাসপাতালে নেওয়ার পর আরো ২ জন মারা যান।  গুরুতর আহতরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানা যায়। 

হতাহতরা সবাই আল-মাজিন ও আল-এনজাজ কোম্পানির কর্মী।  তারা রিয়াদ বিমান বন্দর সংলগ্ন নূরা ইউসিভার্সিটিতে কর্মরত ছিলেন। 

সূত্রে মতে, তারা শুক্রবার ভোর ৩ টায় কর্মস্হল থেকে বাসস্থানে ফিরেন। 

সৌদিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ, শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। 

এদিকে রিয়াদ সিভিল ডিফেন্সের মুখপাত্র মেজর মোহাম্মদ আল-হামাদির এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, শ্রমিকদের থাকার ওই ভবনের প্রবেশদ্বারে যখন আগুন লাগে তখন সেখানে ৪৫ জন ছিলেন।  ওখানে মোট ৫৪ জন থাকতেন, যা ধারণ ক্ষমতার চেয়ে বেশি। 

ভেতরের দিকের কক্ষগুলো থেকে শ্রমিকদের বেরোনোর অন্য কোনো পথ ছিল না।  নিহত সাতজনের অধিকাংশই ওই সব কক্ষের বাসিন্দা বলে সিভিল ডিফেন্সের এক ট্যুইটে বলা হয়েছে। 

নিহত ৮ জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন, ১.সোলেমান- যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।  ২. সেলিম, বি-বাড়িয়া।  ৩. জুবায়ের, সিলেট।  ৪. মজিদ, রূপগঞ্জ, নারায়নগন্জ।  ৫. হিমেল, কালিগন্জ, গাজীপুর।  ৬. রবিন, মাদবদি, নরসিংদী।  ৭. ইকবাল, কিশোরগঞ্জ।  ৮. রাকিব, মানিকগঞ্জ। 

আহতদের মধ্যে ৫ জনের নাম পাওয়া গেছে। 

তারা হলেন, ১. নাজমুল, মানিকগঞ্জ।  ২. খোরশেদ শেখ, ঝিনাইদহ।   ৩. পাবেল, পলাশ, নরসিংদী।  ৪. নাজমুল, বগুড়া।  ৫. সাইম, মানিকগঞ্জ।  বাকিদের নাম পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি। 

খবর পেয়ে হতাহতদের বিস্তারিত পরিচয় জানতে এবং প্রয়োজনীয় সহযোগীতার জন্য রিয়াদ বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম উইং এর সচিব সফিকুল ইসলাম সিমুছি হাসপাতালে যান।  তিনি জানান, ৮ জন নিহত এবং ৭ জন গুরুতর আহত হয়েছেন।  তবে, রিয়াদের ওই হাসপাতালের হিমাগারে ৬ জনের লাশ পাওয়া গেছে।  আরেক জনের মরদেহ বাদশাহ সালমান হাসপাতালে।  বাকি হতাহতের খোঁজ নিতে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করছেন তিনি। 

ধারনা করা হচ্ছে হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পার। 

ফায়ার সার্ভিসের ধারণা, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের উৎপত্তি, পরে সিলিন্ডারে আগুন লেগে এ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।