৯:১৩ পিএম, ২১ এপ্রিল ২০১৯, রোববার | | ১৫ শা'বান ১৪৪০




গরমে জানডা ফাইড্ডা যায়

৩০ এপ্রিল ২০১৭, ০৭:২১ এএম | জাহিদ


মোঃ রাজু খান, ঝালকাঠি : আজ মহান মে দিবস।  শ্রমিকদের ন্যায্য দাবী আদায়ের দিন।  দিবসটি উপলক্ষ্যে ঝালকাঠির হ্যান্ডেলিং শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ ও শ্রমিকদের সাথে কথা বলে পাওয়া গেছে অবহেলা, বঞ্চনা এবং বৈষম্যের অভিযোগ। 

ঝালকাঠির আড়দ্দারপট্টিস্থ ডাকঘাটা এলাকায় শ্রমিকদের সাথে প্রতিবেদক কথা বলতে গেলে আঃ বারেক নামের এক শ্রমিক জানান।  ৫ জনের সংসার।  উপার্জনক্ষম ব্যক্তি একাই।  যে গরম পড়ছে, তাতে মনে হচ্ছে জানডা ফাইড্ডা যায়।  কিন্তু সংসারের দিকে তাকালে বসে থাকার উপায় নেই।  সংসারে আছে মা, স্ত্রী ও স্কুল পড়ুয়া ২ সন্তান।  বৃদ্ধ মা-ছোট বাচ্চা এদের মুখের দিকে আর ঘরে থাকতে পারি না।  কামে নামা লাগবেই।  সবাইরে নিয়ে বাঁচতে অইলে কাম কইর‌্যাই খাওয়া লাগবে।  মহাজনদের অবহেলা, বঞ্চনা ও বৈষম্যের ব্যাপারে অভিযোগ তোলেন আঃ বারেকসহ বেশ কয়েকজন শ্রমিক।  মজুরী বকেয়া এবং অশালীন আচরণের অভিযোগটিই বেশি দেন তারা। 

ঝালকাঠি পৌর কাউন্সিলর ও হ্যান্ডেলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হুমায়ুন কবীর খান জানান, শ্রমিকরা সবসময়ই মহাজনদের কাছে বৈষম্যের স্বীকার হচ্ছে।  ন্যায্য মজুরী পাচ্ছে না।  প্রতিবছরই পণ্যের বাজার দর বাড়ে।  কিন্তু শ্রমের মূল্য বাড়ে না।  ৩ বছর পর বাজার দরের সাথে তাল মিলিয়ে মজুরী বৃদ্ধির জন্য শ্রমিকদের আন্দোলন করতে হয়।  গত ৬ বছর পরে মাস তিনেক পূর্বে ৩০% মজুরী বৃদ্ধির দাবীতে শ্রমিকদের নিয়ে আন্দোলন করা হয়।  ব্যবসায়ীরা এ দাবী মানতে না চাইলেও শ্রমিক বান্ধব নেতা ও আমাদের অভিভাবক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এমপি মহোদয় আমাদের ও ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে ১৮% মজুরী বৃদ্ধি করেন বলেও জানান সভাপতি হুমায়ুন কবীর খান। 

তিনি আরো জানান, ঝালকাঠিতে লবণ ও ময়দাসহ ২০টি কারখানা (মিল) আছে।  এছাড়াও আড়দ্দারী ব্যবসায়ীদের মালা উঠা-নামা, সবমিলিয়ে দেড় হাজারের মতো শ্রমিক আছে।  শ্রমিকদের উৎসব ভাতা হিসেবে বাংলা নববর্ষে লুঙ্গি আর ঈদুল ফিতরে বোনাস।  এছাড়া তাঁদের আর বিশেষ কোন সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয় না। 

এরমধ্যে নারী শ্রমিক রয়েছে ৩০/৩৫ জন।  তারা প্যাকেটজাত করণ ও পরিষ্কারপরিচ্ছন্নতার কাজ করেন।  সবমিলিয়ে শ্রমিকরা বিলাসিতা না করতে পারলেও খেয়ে দেয়ে ভালো আছেন বলে দাবী করেন শ্রমিক নেতা হুমায়ুন কবীর খান।