২:৫১ পিএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, রোববার | | ৭ রবিউস সানি ১৪৪০




অভিযোগের তীর নৌ-পুলিশ সদস্যের পরিবারের বিরুদ্ধে

গরু বাঁধার খুঁটিতে বেঁধে গৃহবধুকে নির্যাতন !

০৮ আগস্ট ২০১৮, ১২:৪৮ এএম | সাদি


সিলেট প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় গরুর বেঁধে রাখার খুঁটিতে বেঁধে প্রতিপক্ষের লোকজন আকলিমা বেগম (২৬) নামে এক গৃহবধুকে নির্যাতন করেছে। ’ ওই গৃহবধুকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে নৌ পুলিশে থাকা এক কনষ্টেবলের পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে।  

আকলিমা উপজেলার ধনপুর ইউপির পশ্চিম ছাতারকোনা গ্রামের সেলিম মিয়ার স্ত্রী। 

এ ব্যাপারে মঙ্গলবাররাতে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।  গৃহবধুকে নির্যাতনের  ঘটনায় জড়িত থাকায় থানা পুলিশ মঙ্গলবার রাতে কাজল নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,  উপজেলার ছাতার কোন গ্রামে নৌ- পুলিশ কনষ্টেবলের পরিবার ও  গৃহবধূ আকলিমার পরিবারের মধ্যে মামলা মোকদ্দমার জের ধরে পুলিশ সদস্যের পিতা আব্দুল মোতালেব  ও আইন উদ্দিনের ছেলে আব্দুল মান্নানসহ অন্যান্যরা ওই গৃহবধূকে বাড়ি থেকে মঙ্গলবার সকালে ধরে  নিয়ে গিয়ে পুলিশ সদস্যের চাচা আব্দুল কদ্দুছের বাড়ির উঠোনে থাকা গরু বেঁধে রাখার রাখার খুঁটির সাথে বেঁধে রেখে বেধরকভাবে মারপিঠ করে। 

ঘটনার খবর পেয়ে বিশ্বম্ভরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পৌছে দুপুরে আশংকাজনক অবস্থায় ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। 

উপজেলার পশ্চিম ছাতারকোনা গ্রামের সেলিম মিয়া মঙ্গলবার রাতে জানান, আমার স্ত্রী আকলিমা গত রোববার আমলগ্রহকারী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রতিপক্ষের বিরোদ্ধে মামলা দায়ের করায় নৌ পুলিশে কর্মরত গ্রামের শফিকুল ইসলামের পরিবারের  লোকজন আমার স্ত্রীকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে গরুর বেঁধে রাখার খুঁটিতে বেঁধে মারপিঠ করেছে। 

সুনামগঞ্জে টুকেরঘাটে নৌ পুলিশে কর্মরত কনষ্টেবল শফিকুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশ বললেন,   আমার মা সুফিয়া খাতুনকে আমাদের বাড়িতে এসে আকলিমা মারপিঠ করায়  তার আত্মীয়রাই তাকে মারধর করেছেন। 

বিশ্বম্ভরপুর থানার ওসি মোল্লা মো. মুনির হোসেন  জানান, এ ঘটনায় নির্যাতিত গৃহবধুর স্বামী সেলিম মিয়া বাদী হয়ে ৫ জনকে অভিযুক্ত মঙ্গলবার রাতে থানায় একটি মামলা দায়ের করলে এজাহারনামীয় এক আসামীকে রাতেই গ্রেফতার করা হয়।