৪:০৮ এএম, ১৭ জুলাই ২০১৮, মঙ্গলবার | | ৪ জ্বিলকদ ১৪৩৯


৯ বছর অতিবাহিত হলেও দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ

ঘোড়াঘাট ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল নির্মাণ এখনো সমাপ্ত হয়নি

১৪ জানুয়ারী ২০১৮, ০৮:০১ পিএম | সাদি


মো. আশরাফুল আলম, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : ২০  কোটি টাকা অর্থ বরাদ্দে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ ঘোড়াঘাট উপজেলায় ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণের ভবনের নির্মাণ কাজ ৯ বছরেও নির্মাণ শেষ করে কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দিতে পারেনি ঠিকাদার।  জানা গেছে, ২০১০ সালে দুটি উপজেলার ৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল নির্মাণের দায়িত্ব পায় রাজশাহীর একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। 

সংশ্লিষ্ট দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভবন হস্তান্তর করার কথা থাকলেও তা সম্ভব হয়নি।  ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বলেছেন, মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে যে পরিমান অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে তা দিয়ে শতভাগ ভবন নির্মান করা সম্ভব হয়নি।  হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান, দীর্ঘ ৩ বছর ভবনের নির্মান কাজ বন্ধ করে ঠিকাদার লাপাত্তা হয়ে যায়। 

সেই সময় দায়িত্ব রত উপজেলা স্বাস্থ্য প্রশাসক ডা. মো. রেজাউল বারী জানান, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভবন নির্মানের তাগাদা দিয়ে একাধিকবার পত্র ঠিকাদারকে দেয়া হলে কাজ করা তো দুরের কথা চিঠির জবাবও দেয়নি।  বর্তমানে নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. মো.সিরাজুল ইসলাম জানান, নতুন ঠিকাদারকে পুন টেন্ডার দিয়ে ভবন নির্মাণের বাকী অংশের কাজ চলছে।  উল্লেখ্য, বর্তমানে ঠিকাদার নিন্মমানের সরঞ্জামাদি ব্যবহার করে কাজ করতে থাকলে এলাকাবাসী কাজটি বন্ধ করে দেয়। 

পরে দিনাজপুর ৬ আসনের সংসদ সদস্য মো. শিবলী সাদিক পরিদর্শন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে কমিটি করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দেয়।  বর্তমানে ৯ বছর অতিবাহিত হলেও একই প্যাকেজে ভবন দুটি নির্মাণ সম্পন্ন হয়নি।  তবে নবাবগঞ্জ স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা জানান, ভবন নির্মাণ শেষ হয়েছে।  বিদ্যুৎ সংযোগের কাজ চলছে।  হয়তো এক মাসের মধ্যেই নতুন ভবনে চিকিৎসা সেবা কাজ করা হতে পারে। 

এ বিষয়ে ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. মো. নুর নেওয়াজ আহমেদ এর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ভবন নির্মাণ শেষ হলে দিনাজপুর সিভিল সার্জনকে হস্তান্তর করা হবে।  এরপর তার মাধ্যমে আমাদেরকে জানানো হবে।  তবে অল্প দিনের মধ্যে ভবন নির্মান শেষ হবে। 



keya