৩:৩৪ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার | | ১৮ মুহররম ১৪৪১




জাতীয় পতাকার আদলে সজ্জিত নান্দাইলের বিভিন্ন সঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়

১৭ আগস্ট ২০১৯, ০৫:২২ পিএম | নকিব


মো. শাহজাহান ফকির, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: বাংলাদেশ ও মুক্তিযোদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত লাল-সবুজের ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে উদ্বুদ্ধ করতে জাতীয় পতাকার আদলে সজ্জিত হচ্ছে ময়মনসিংহের নান্দাইলের বিভিন্ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। 

লাল-সবুজের রংয়ে রূপায়িত বিদ্যালয়গুলো কোমলমতি শিশু-কিশোরদের মনে নতুন ভাবে সাড়া দিচ্ছে। 

সহজেই চিনতে পারছে তাদের/ বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার পরিচিতি।  জাতীয় পতাকার চতুর্ভূজে সবুজ রং বাংলাদেশের প্রকৃতি ও তারুণ্যের প্রতীক এবং বৃত্তের লাল রং মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি বহন সহ বিভিন্ন বৈচিত্র ফুটে উঠেছে। 

আর এসব বিদ্যালয়ভবনগুলো দেখলেই মনে হয় যেন, এককেটি লাল সবুজের বাংলাদেশ। 

এছাড়া নতুন রংয়ে সজ্জিত বিদ্যালয় পেয়ে শিশু-কিশোরীরা নিয়মিত স্কুলে গমন ও নতুন সাজে আনন্দে মেতে উঠেছে।  ইতিমধ্যে নান্দাইল রোড সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়, মিশ্রীপুর সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়, চামারুল্লাহ সঃপ্রাঃ বিদ্যালয় সহ অর্ধশতাধিক বিদ্যালয় জাতীয় পতাকার রংয়ের আদলে সজ্জিত হয়েছে।  উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানাযায়, নান্দাইল উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের ১৭৮টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।  যেসব বিদ্যালয়গুলোতে সরকারী বরাদ্দকৃত উন্নয়ন ও মেরামতের জন্য যে অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, সে অর্থ থেকেই লাল-সবুজের রংয়ে রাঙ্গানো হয়েছে বিদ্যালয় ভবনগুলো। 

নান্দাইল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক মো. আমিনুল ইসলাম আঞ্জু জানান, জাতীয় পতাকার আদলে সজ্জিত প্রতিটি বিদ্যালয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশের উন্নয়ন রোল মডেল হিসাবে দৃষ্টান্ত বহন করবে।  আর ক্ষুদে শিক্ষার্থীরাও সহজেই জাতীয় পতাকা ও এর রং জানতে পারছে।  নান্দাইল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী জানান, মেরামতে বরাদ্দকৃত অর্থে যেহেতু বিদ্যালয় ভবনগুলো রং করতেই হবে, সেজন্য আমরা জাতীয় পতাকার রংয়ে সাজিয়ে তুলতে চেয়েছি। 

পর্যায়ক্রমে সকল বিদ্যালয়গুলো লাল-সবুজের রংয়ে সাজিয়ে তোলা হবে। 

এ বিষয়ে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ আব্দুর রহিম সুজন সজ্জিত বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষকদের সাধুবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এতে করে নতুন প্রজন্মের শিশুরা বাংলাদেশ ও স্বাধীনতা সংগ্রামের মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রেরণায় উজ্জীবিত হবে এবং জাতীয় পতাকার মর্যদায় রক্ষায় দেশপ্রেমের আত্মনিয়োগ করে নতুন সোনার বাংলা গড়তে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। 


keya