৪:৩৩ পিএম, ১৮ আগস্ট ২০১৮, শনিবার | | ৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯


জেনে নিন যে অভ্যাস গুলো অপরের জন্য ক্ষতিকর

২০ এপ্রিল ২০১৮, ০৫:৫৬ পিএম | সাদি


এসএনএন২৪.কম : প্রত্যেক মানুষই অভ্যাসের দাস।  কিছু অভ্যাস আছে ভালো আবার কিছু অভ্যাস আছে খুবই খারাপ, যা অন্যদের বিরক্তের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।  কিন্তু যে অভ্যাসগুলো অন্যের কাছে বিরক্তের কারণ হয় সেই অভ্যাসগুলো আপনি নাই বা করলেন।  এতে আপনার মনুষ্যত্বের পরিচয় মেলবে। 

তবে যে অভ্যাসগুলো অন্যকে বিরক্ত করে সেই অভ্যাসগুলো কিছু জেনে নেওয়া যাক-

অকারণে মোবাইল বন্ধ করে রাখা : সামান্য কিছু হলেই কিংবা অকারণে মোবাইল ফোন বন্ধ করে রাখাটা খুবই বিরক্তিকর একটি অভ্যাস।  অনেক মানুষের মধ্যেই এই অভ্যাসটি আছে।  দেখা গেল আপনি অকারণে মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে রেখেছে ঠিক এই মূহুর্তে কেউ একজন খুব গুরুত্বপূর্ণ কাজে ফোন দিয়েছে।  কিন্তু আপনার ফোন বন্ধ থাকায় সেই ব্যক্তি খুব বিরক্তবোধ করছে কিংবা সঙ্গীর ক্ষেত্রেও এমনটি হতে পারে। 

থুথু ছিটিয়ে কথা বলা : এটা একটা খুবই বাজে অভ্যাস।  আপনি একজনের সঙ্গে কথা বলছেন কিন্তু তার সামনেই বার বার থু থু ফেলছের আর কথা বলছেন, এতে আপনার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা লোকটি খুব বিরক্তবোধ করবে।  তার মনে আপনার সম্পর্কে ঘৃণা জন্মাবে। 

ঢেঁকুর তোলা : ভালো খাবার খাওয়ার পর আয়েশ করে ঢেঁকুর তোলাটা আমাদের দেশে স্বাভাবিক রীতি হলেও এটি কিন্তু খুবই অশোভন একটি কাজ।  ঢেঁকুরের শব্দটা শুনতে কিন্তু খুব একটা ভালো শোনায় না।  এই অভ্যাসটি যদি আপনার থেকে থাকে তাহলে বাইরে কোথাও খেতে গিয়ে যখন এ কাজটি করবেন তখন পাশের জনের খুবই বিরক্ত লাগবে।  এমনকি তার খাওয়ার রুচিটাই হয়তো চলে যাবে। 

বিনা কারণে জোরে কথা বলা : আনেকেরই জোরে কথা বলার অভ্যাস আছে।  তাই বলে কারণে-অকারণে জোরে কথা বলা অন্যের কাছে খুব বিরক্ত লাগতে পারে।  বিশেষ করে ফোনে কথা বলার সময় এই প্রবণতাটা বেশি দেখা যায়।  এতে আশেপাশের মানুষদের বিরক্ত লাগবে। 

অপেক্ষা করানো : আপনি কি আপনার সঙ্গীর সঙ্গে দেখা করতে যাওয়া দেরি করছেন কিংবা কোন গুরুত্বপূর্ণ ফোন করার কথা ভুলে যাচ্ছেন? এই অভ্যাসটি একেবারেই অযোগ্য।  আপনার জন্য আরেকজন অপেক্ষা করে করে আপনার ওপর বিরক্ত হয়ে যাচ্ছে।  এটা ঠিক নয়। 

পা ছেঁচড়া হাঁটা : অনেকেই পা ঘষটে বা ছেঁচড়ে শব্দ করে হাঁটেন।  এটা খুবই বাজে অভ্যাস।  এই শব্দ শুনতে খুব বাজে শুনায়।  এতে আশেপাশের মানুষও বিরক্ত হয়ে উঠে। 

অকারণে গা চুলকানো : দেখা যায়, অনেক ব্যক্তিই অকারণে গা চুলকান।  শুধু তাই নয় খুব শব্দ করে গা চুলকাতে ভালোবাসে।  এতে পাশের জনের খুব বিরক্ত মনে হয়।  তাছাড়া এর পরিচয় মেলে বাঁদরের।  কেননা বাঁদার অনবরত গা চুলকায় ঘ্যাঁসঘ্যাঁস করে।  আপনি নিশ্চয়ই চাইবেন না কেউ বিরক্ত হয়ে আপনাকে বাঁদরের সঙ্গে তুলনা করুক! তাই কারো সামনে শরীরের বিভিন্ন জায়গা চুলকাবেন না।