৮:৫০ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার | | ৮ মুহররম ১৪৪০


জুরাছড়িতে তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা শুরু

১১ জানুয়ারী ২০১৮, ০৬:৫৮ পিএম | জাহিদ


সুমন্ত চাকমা, জুরাছড়ি প্রতিনিধি : পৌষের শিশির ভেজা সকাল।  কানে বাজছে প্রাধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল উন্নয়নের গান।  ঘন কুয়াশা ধীরে ধীরে কেটে যাচ্ছে-উকি দিচ্ছে সূর্য়ের হাঁসি।  উপজেলা পরিষদের প্রাঙ্গনে যে যার স্টল সাজাতে ব্যস্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।  লোক সমাগম হতে লাগল। 

গুরাগুরি করছে এক স্টল থেকে অন্য স্টলে লোকজন।  প্রতিটি স্টলে লোকজনদের তাদের সেবা ও কার্যক্রম তুলে ধরছে স্টলের স্ব-স্ব কর্মকর্তারা।  তবে এবছর উন্নয়ন মেলায় ব্যতিক্রমি ২টি স্টল সাজানো হয়েছে।  একটি সহকারী শিক্ষিকাদের উদ্যোগে শীতের পিঠা ঘর ও অন্যটি সেনা বাহিনীর উদ্যোগে আর্দশ পিঠার স্টল। 

দক্ষিণ-পশ্চিমে ২৬ নং স্টলে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ।  দর্শনার্থীদের একটি সূখী পরিবার গঠনে জম্ম নিয়ন্ত্রন বিষয়ে ধারণা প্রদান করছেন পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ মঞ্জুরুল আলম।  ২৭ নং স্টলে স্বাস্থ্য বিভাগ।  এখানে ল্যাব টেকনিশিয়ন রহিনী চন্দ্র চাকমা বিনা মূল্যে ব্লাড গ্রুপ পরিক্ষা করে দিচ্ছেন।  অন্যদিকে একজন কমিনিউটি মেডিক্যাল এক কর্মকর্তা উচ্চ রক্তচাপ পরিক্ষা করে দিচ্ছেন।  এছাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বিপাশ খীসা স্বাস্থ্য সচেতনতা বিষয়ে বিভিন্ন আলোকপাঠ করতে দেখা যায়। 

এদিকে ২নং স্টলে জুরাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ।  বিভিন্ন উন্নয়নের চিত্র নিয়ে সাজিয়েছেন স্টল।  রয়েছে বিভিন্ন সচেতনতা মূলক ফেস্টুনও।  এখানে ইউনিয়ন পরিষদের সচিব অনিল কুমার চাকমা ও উদ্যোক্তা ইউনিয়ন পরিষদে বাস্তবায়িত ও বাস্তবায়িতধীন বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচী উপস্থাপন করছেন। 

এছাড়া সহজে ইউনিয়ন ডিজিটেল সেন্টার থেকে সরকারী সেবা কি ভাবে পাওয়া যায় উপস্থাপন করছেন উদ্যোক্তা।  স্টলে সাজানো হয়েছে বাস্তবায়িতধীন এলজিএসপির-৩ কর্মসূচীর দরিদ্র বেকার নারীদের জন্য সেলাই মেশিন ও ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য স্কুল ব্যাগ। 

বৃহস্পতিবার জুরাছড়ি উপজেলা পরিষদ প্রঙ্গনে উন্নয়ন মেলায় এই চিত্র দেখা যায়।  দেশের উন্নয়নের চিত্র জনগণের কাছে তুলে ধরতে তিন দিনব্যাপী চলা এই মেলার আয়োজন করেছে উপজেলা প্রশাসন।  সারা দেশের ন্যায় সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মেলার উদ্ভোধন করা হয়। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মেলার উদ্ভোধনের পরে রিসোস সেন্টারের ইন্সেক্টের মোঃ মরশেদুল আলমের ধারা সঞ্চলনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রাশেদ ইকবালের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান উদয় জয় চাকমা, বিশেষ অতিথি জুরাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান ক্যানন চাকমা, থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃআব্দুল বাছেদ, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বিপাশ খীসা, যক্ষা বাজার ক্যাম্প অধিনায়ক সিনিয়র ওয়ারেন্ড অফিসার মোঃ হজরত আলী উপস্থিছিত ছিলেন। 

এছাড়া মেলায় অংশগ্রহনকৃত জুরাছড়ি, বনযোগীছড়া, মৈদং ও দুমদুম্যা ইউনিয়ন ডিজিটেল সেন্টারের প্রতিনিধিগণসহ ৩৮টি স্টলের  বিভিন্ন কর্মকর্তা ও প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান উদয় জয় চাকমা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে তোলার লক্ষে ১০টি বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের ঘোষণার মাধ্যমে দেশকে সামনে দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। 

সভপতির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী গত ১৩ বছরের অগ্রগতি ও উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন।  ২০০৯ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দেশে অনেক উন্নয়ন হয়েছে।  সবাই এই উন্নয়নের অংশ।  এই অর্জন সবার।  আগামী ২০২১ সালের মধ্যে সকলের প্রচেষ্টায় বাংলাদেশকে একটি ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গরে তুলা হবে। 

তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলায় সমাপনী অনুষ্ঠানে আয়োজন করা হয়েছে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক কুইজ, আলোচনা, বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগীতা।