১:০৬ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




ট্রাক-লরি ‘নিষেধাজ্ঞা অমান্য’ করে দিনের বেলায় চলছে

০৬ মে ২০১৯, ০৯:৩৫ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : যানজট নিরসনে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের দেওয়া ‘নিষেধাজ্ঞা অমান্য’ করে দিনের বেলায় নগরে চলছে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি।  আর এসব ভারি যানবাহনের কারণে নগরে সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। 

চট্টগ্রাম বন্দরে বিভিন্ন রফতানি পণ্য আনা নেওয়ার কাজে ব্যবহৃত এসব ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরির অতিরিক্ত চাপে অনেকটা ‘নিরুপায়’ সিএমপির ট্রাফিক বিভাগের সদস্যরা। 

এসব ট্রাক-কাভার্ড ভ্যানের মধ্যে কিছু কিছু বিজিএমইএ’র ‘বিশেষ টোকেন’ নিয়ে নগরে প্রবেশ করে বলে জানা গেছে।  বিজিএমইএ নেতাদের অনুরোধে সিএমপি ‘বিশেষ টোকেন’ থাকা যানবাহনগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না। 

এ সুযোগে অন্যান্য ট্রাক-কাভার্ড ভ্যানও নগরে প্রবেশ করে বলে অভিযোগ রয়েছে।  বিভিন্ন জেলা থেকে পণ্য নিয়ে নগরে প্রবেশ করে এসব ট্রাক।  ট্রাকের পাশাপাশি কাভার্ড ভ্যানেও পণ্য পরিবহন করা হয়। 

সিএমপির ট্রাফিক বিভাগের বিধি অনুযায়ী, দিনের বেলায় নগরে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।  ভোর থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি প্রবেশ করা যাবে না বলে নিষেধাজ্ঞা জারি করে সিএমপি।  তবে বন্দরে আসা ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি এবং বিজিএমইএ’র টোকেনে চলা  যানবাহনের জন্য নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে পুলিশ। 

আন্তঃজেলা ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতির আইন ও বন্দর বিষয়ক সম্পাদক আলমগীর হোসেন বাবুল বলেন, বন্দরে পণ্য আনা-নেওয়ার কাজে ব্যবহৃত ট্রাক-কাভার্ড ভ্যানগুলো দিনের বেলায় চলাচল করে।  তাও সীমিত আকারে।  কিছু কিছু যানবাহন বিজিএমইএ’র টোকেনে রফতানি পণ্য নিয়ে বন্দরে আসে। 

চালকদের অদক্ষতা ও অসাবধানতার কারনে মাঝেমধ্যে যানজটের সৃষ্টি হয় বলে মনে করেন আলমগীর হোসেন বাবুল। 

সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান বলেন, দিনের বেলায় নগরে ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান প্রবেশ ও চলাচল নিষিদ্ধ।  এসব যানবাহন যাতে নগরে প্রবেশ করতে না পারে, সেজন্য কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। 

বন্দরে আসা কিছু কিছু ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান ও বিজিএমইএ’র টোকেনে চলা যানবাহন চলতে দিতে হয় বলে জানান সিএমপি কমিশনার।