১১:২৮ পিএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, শুক্রবার | | ৫ রবিউস সানি ১৪৪০




ডোমারে ইউপি সদস্যের পরকীয়া প্রেমালাপের অডিও ভাইরাল

১৫ মার্চ ২০১৮, ১২:০৬ এএম | নকিব


বখতিয়ার ঈবনে জীবন, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি : ডোমার উপজেলায় এক ইউপি সদস্যের পরকীয়া প্রেমালাপের অডিও ভাইরাল! এ নিয়ে এলাকায় তোলপার।  এনিয়ে জনমনে ক্ষোভের সঞ্চার হলেও ইউপি চেয়ারম্যান সহ অভিযুক্তরা বিষয়টি নিছক দুলাভাই শালিকার সম্পর্ক বলে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে বলে ও জানাগেছে। 

সরেজমিনে জানাগেছে, উপজেলার হরিণচড়া ইউনিয়নের পূর্ব-হরিণচড়া গ্রামের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য দুই সন্তানের জনক মাহাবুব আলমের সাথে একই এলাকার শাহিনুর রহমানের স্ত্রী এক সন্তানের জননি সুফিয়ার সাথে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে।  সেই সূত্রে মাহাবুবের পার্শ্ববর্তি সেচপাম্প ঘড়ে সকলের অগোচরে চলে তাদের প্রেম লীলা। 

বিষয়টি এলাকাবাসীর নজরে এলে পরবর্তীতে তারা জায়গা বদল করে প্রেম নিবেদনের জন্য বেঁছে নেয় পাশ্ববর্তি নদীর পার ঘেঁসা ভুট্টা ক্ষেত।  সেখানেও বিধিবাম স্বামী শাহিনুর আলমের নজরদারীতে হাতে নাতে ধরাও পরে এই জুটি। 

বিষয়টি পাঁচ কান হওয়ার আগেই মোটা লেনদেনের মাধ্যমে মিটিয়ে ফেলে চতুর মাহাবুব।  তবে হাটে হাঁড়ি ভাঙ্গে তাদের এই প্রেমালাপের অডিও রেকর্ড যখন তারই কোন নিকট বন্ধুর মারফত এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।  জানাজানি হয় ইউপি সদস্যের পরকীয়া কৃর্তি। 

এবিষয়ে সুফিয়ার চাচা শশুর আতাউর রহমান প্রতিনিধিকে জানান,কয়েক দিন আগে সুফিয়া ও মাহাবুব মেম্বর নদীর পরে ভুট্টা ক্ষেতে দেখা করে ফেরার পথে ভাইস্তা শাহিনুরের নজরে পরে ।  এনিয়ে শাহিনুর বাড়ীতে অনেক হাঙ্গামা করে।  তবে দুজনই বিষয়টি বরাবরের মতো অস্বিকার করে।  এটা নাকি তাদের শালি দুলাভাইয়ের ব্যাপার।  এখন শুনছি তাদের মোবাইলে বলা রেকর্ড করা কথা সকলের হাতে হাতে। 

যা শুনলে সহজেই বোঝা যাবে বিষয়টি কি? নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তি প্রতিবেদককে জানান, মাহাবুব মেম্বরের জমি শাহিনুর বর্গা চাষ করে ।  সেই সুবাদে তাদের বাড়ীতে অবাধ যাতায়াত ছিল মাহাবুব মেম্বরের।  সে থেকেই সুফিয়ার প্রতি ললুপ দৃষ্টি পরে মাহাবুব মেম্বরের।  দারিদ্রতার সুযোগ নিয়ে নানা প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে এমনটি করেছে সে।  তারা মাহাবুব মেম্বরের শাস্তি দাবী করেছে। 

সুপিয়া বেগম জানান, আমরা তার জমি চাষ করি তাই ফোনে কথা হতেই পারে তবে মানুষ যা রটাচ্ছে তা সত্য নয়।  এবিষয়ে জানতে মাহাবুব আলমের মুঠোফেনে একাধিকবার যোগাযোগ করেও তা বন্ধ পাওয়া গেছে। 



keya