৫:০৮ এএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার | | ৮ সফর ১৪৪০


ডিমলায় কালো বাজারে অবৈধ সরকারী চাউল জব্দ, আটক-১

১২ জুন ২০১৮, ০৪:৩৯ পিএম | সাদি


হামিদা আক্তার, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : ডিমলায় কালো বাজারে ক্রয়কৃত ত্রানের চাল গোডাউনে রেখে ফেঁসে গেছেন অসাধু এক ব্যবসায়ী।  গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে গোডাউনে রাখা ৭১২ বস্তা ত্রানের চাউল উদ্ধার করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার। 

জানা গেছে, মঙ্গলবার উপজেলার ডাঙ্গারহাট নামক স্থানে বালাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের পূর্বদিকে গ্রামীণ ব্যাংক সংলগ্ন জিয়া ট্রেডার্স গোডাউনে সার, কীটনাশক ও চাউল ব্যবসায়ী ফজলার রহমানের পুত্র সফিয়ার রহমান আকালু চোরা কারবাড়ীর মাধ্যমে সংগ্রহকৃত চাউলগুলি তার নিজস্ব গোডাউনে মজুদ করেন। 

অবৈধভাবে সরকারী চাউল মজুদের বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে ঘটনার দিন সন্ধা থেকেই আলোচনা সমালোচনার ঝড় ওঠে এলাকায়।  খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে পৌছে অনুসন্ধান চালিয়ে জিয়া ট্রেডার্স নামক গোডাউনে মজুদকৃত  চাউলগুলি জব্দ করে গোডাউনটি সিলগালা করে দেন। 

এ সময় ঘটনাস্থল থেকে অসাধু ব্যবসায়ী সফিয়ার রহমান আকালুর পুত্র হামিদুল ইসলামকে আটক করেন তিনি।  এলাকাবাসী জানান, জব্দকৃত চাউলগুলি ঘটনার দিন ট্রাকে করে নিয়ে আসেন ব্যবসায়ী আকালু।  তিনি নিজেই ঐ চাউলের বস্তাগুলি গোডাউনে রেখে মজুদ করেন।  ঘটনাটি জানাজানি হলে অবৈধ ব্যবসায়ী আকালুর  পুত্র হামিদুল, জিয়াউর রহমান জিয়াসহ ভারাটে লোকজন দিয়ে দ্রুত চাউলগুলি গোডাউনের ফ্লোরে খুলে রেখে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর খাদ্য অধিদপ্তরের সিলমোহরকৃত বস্তাগুলি সরিয়ে ফেলেন।  অনুসন্ধানে ঐ বস্তাগুলি গোডাউনের পার্শ্ববর্তী বসবাসকারী জনৈক্য আজাহার ইসলামের বাড়ীতে পাওয়া যায়। 

এ সময় ঐ বাড়ীর রোকজন জানায় সরকারী খাদ্যগুদামের বস্তাগুলি রেখে দিয়ে পালিয়ে যান ব্যবসায়ী আকালু।  এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অবৈধভাবে সরকারী চাউল মজুদ করে রাখার অপরাধে ঐ ব্যবসায়ীসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে নিয়োমিত মামলা করা হয়েছে বলেও থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।  এ ব্যাপারে উপজেলা  নির্বাহী কর্মকর্তা নাজুমন নাহার বলেন, ঘটনাস্থলে ৪ ঘন্টা ব্যাপী অভিযান পরিচালনা করা হয়।  এ সময় প্রায় ২২/২৩ মেট্রিক টন চাউল জব্দ করে গোডাউনটি সিলগালা করা হয়েছে। 

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় রাতেই ডিমলা উপজেলার সকল ইউনিয়নে পরিদর্শন করে ভিজিএফ’র সরবরাহকৃত চাউলগুলি প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে মজুদকৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে।  কোথাও কোন চালের ঘাটতি ছিলো না বলেও তিনি জানান।  এ ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে হামিদুলকে আটক করা হয়েছে এবং জব্দকৃত চাউলগুলি কোথাকার সে বিষয়েও তদন্ত চলছে।  


keya