৭:২২ পিএম, ১৭ জুলাই ২০১৮, মঙ্গলবার | | ৪ জ্বিলকদ ১৪৩৯


ডিমলা সীমান্তে ফেন্সিডিলসহ বিজিবি’র হাতে আটক ১

১৫ এপ্রিল ২০১৮, ০৯:১৬ পিএম | সাদি


হামিদা আক্তার, ডিমলা প্রতিনিধি :  নীলফামারীর ডিমলা সীমান্তে  ১৫ এপ্রিল’১৮ রোববার ভোরের দিকে ৮৫ বোতল  ভারতীয় ফেন্সিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী ও  মাদক সম্রাট এক যুবককে আটক করেছে সীমান্ত রক্ষাবাহীনি বর্ডাও গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। 

জানা যায়, ডিমলা সীমান্তে বালাপাড়া বিওপি ক্যাম্পের বিজিবি’র একটি টহল দল টহলরত ঐ যুবককে সন্দেহ হলে তাকে আটক করে তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেল তল্লাসী চালিয়ে বিপুল পরিমাণের মাদকের চালানটি আটক করে। 

এ বিষয়ে বালাপাড়া কোম্পানি কমান্ডার মোহাম্মদ আলী জানান, ভোরের দিকে আমাদের বিজিবি’র টহলদলটি ৭৯০ নং পিলারের নিকটে ভারতীয় সীমান্তের পাশ্ববর্তী একটি পাকা রাস্তা দিয়ে টহল করার সময় উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের মধ্য ছাতনাই গ্রামের মোঃ তহিদুল হকের ছেলে আপন ইসলাম (২২) ৮৫ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিলগুলি ব্যাগে ভরে একটি CD Deluxe, Hero Honda মটর সাইকেল যোগে পাশ্ববর্তী উপজেলা ডোমারের দিকে যাওয়ার সময় যুবকের গতিবিধি সন্দেহ হলে তাকে বিজিবি সদস্যরা আটক করেন । 

তিনি বলেন, ঠাকুরগঞ্জ- আমবাড়ী পাকা সড়কে শোভানগঞ্জ বালাপাড়ার গোমনাতি মোড়ে তাকে আটক করা হয়।  মাদক ব্যবসায়ী আপনের কাছে  ফেন্সিডিল ছাড়াও, ফেন্সিডিল বিক্রির ৮’শ ১০ টাকা ও দুটি মোবাইল ফোন পাওয়া যায়।  আটককৃত যুবক আপনকে  জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, এ বিপুল পরিমাণ ফেন্সিডিলগুলো মুলত মধ্যছাতনাই গ্রামের মাদক সম্রাট মৃত মন্তাজ আলীর ছেলে মাহাবুল ও মোকলেছারের। 

সে জানায় আমি পেটের দায়ে ভারী হিসেবে এই কাজ করি।   কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে জিজ্ঞাস করলে জানায়, ডোমারের ছপিয়ারের কাছে নিয়ে যাচ্ছি।  তাতে চালান প্রতি ৫ থেকে ৬  হাজার টাকা তাকে পরিবহন বাবদ দেওয়া হয়।   ইতিপূর্বেও সে এভাবে বিভিন্ন মাদকদ্রব্য ছপিয়ারের কাছে পৌঁছে দিয়েছিলাম বলেও স্বীকার ডিমলা থানা পুলিশের কাছে বলে।  ছপিয়ারের বাড়ী কোথায় তা বলতে না পারলেও একেক দিন ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় মাদক গুলো ডেলিভারি দিতো বলে সে জানায়। 

এ বিষয়ে ৭-বিজিবি বালাপাড়া কোম্পানি সদর এর হাবিলদার নুরল আমিন ডিমলা থানায় মাদক নিরোধ আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।  যার নং-১৫, তাং - ১৫/৪/২০১৮ ইং।