৬:০৪ এএম, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, শনিবার | | ৬ রবিউস সানি ১৪৪০




ঢাবির ৭ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১০:০৮ পিএম | সাদি


এসএনএন২৪.কম : নিজের ক্যালকুলেটর ফেরত চাওয়া নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী এহসান রফিকের ওপর হামলার ঘটনায় ৭ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।  বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কৃত ৭ শিক্ষার্থীর সবাই সলিমুল্লাহ হলের ছাত্র ও ঢাবি শাখার ছাত্রলীগ নেতা। 

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা বোর্ডের সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 

বহিষ্কারের সুপারিশ পাওয়া সবাই হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তাহসান আহমেদ রাসেলের অনুসারী ও হল কমিটিতে পদধারী বলে জানা গেছে। 

বহিষ্কৃতদের মধ্যে ছাত্রলীগের এস এম হল শাখার পদধারী একজনকে স্থায়ী, পাঁচজনকে দুই বছর ও একজনকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে। 

সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।  বহিষ্কারের এ সিদ্ধান্ত চলতি মাসের সিন্ডিকেটের সভায় অনুমোদন দেয়া হবে বলেও জানান তিনি। 

স্থায়ী বহিষ্কৃত একজন হলেন- ছাত্রলীগের এসএম হল শাখার সহ-সম্পাদক ওমর ফারুক (মার্কেটিং বিভাগ)। 

দুই বছরের জন্য বহিষ্কৃতরা হলেন- হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক রুহুল আমিন (সাংবাদিকতা বিভাগ), সদস্য সামিউল ইসলাম সামী (সমাজবিজ্ঞান বিভাগ), সদস্য আহসান উল্লাহ (দর্শন), উপ-প্রশিক্ষণ সম্পাদক মেহেদী হাসান হিমেল (উর্দু বিভাগ) এবং সহ-সম্পাদক ফারদিন আহমেদ মুগ্ধ (লোক প্রশাসন)। 

এ ছাড়া ঘটনায় প্ররোচনার অভিযোগে হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলামকে (আইইআর বিভাগ) এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়েছে। 

হামলায় প্ররোচণার দায়ে মো. আরিফুল ইসলামকে (শিক্ষা ও গবেষণা চতুর্থ বর্ষ) এক বছর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এবং স্থায়ীভাবে হল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। 

উল্লেখ্য, গত ১ ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাবির দুর্যোগ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র এহসান রফিককে মারধর করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।  এতে এহসানের বাম চোখ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।  ওই চোখে সে কিছুই দেখতে পাচ্ছে না।  আগামী ৫ মার্চ ভিসা পেলে তাকে ভারতের চেন্নাইয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য নেওয়া হবে বলে তার পরিবারিক সূত্র জানিয়েছে। 



keya