১০:১১ পিএম, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, শনিবার | | ৬ রবিউস সানি ১৪৪০




একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় চবি উপাচার্য

তরুন-মেধাবী গবেষকগণ দেশের কান্ডারী

০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০২:৪১ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : বরেণ্য সমাজ বিজ্ঞানী ও শিক্ষাবিদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, তরুন-মেধাবী গবেষকগণ দেশের কান্ডারী, নতুন শতাব্দীর অগ্রপথিক।  জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য বলিষ্ট নেতৃত্বে লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত মহান স্বাধীনতার সুফল ঘরে তুলতে সকল প্রকার কুসংস্কার-কুপমন্ডকতা-সংকীর্ণতা, পশ্চাৎপদতা এবং অন্ধকার যুগের অবসান ঘটিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক-মানবিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে তরুনদেরকেই দায়িত্বভার গ্রহণ করতে হবে। 

সুতরাং, তীব্র প্রতিযোগীতাপূর্ণ এ বিশে^ শিক্ষা-গবেষণা, ব্যবসা-বাণিজ্য-শিল্প, কৃষি, তথ্য-প্রযুক্তি, চিকিৎসা সেবা, ক্রীড়া-সংস্কৃতি সকল ক্ষেত্রে বিজ্ঞানমনষ্ক মানবসম্পদ উৎপাদনের কোন বিকল্প নেই।  ৬ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখ বেলা ১১ টায় চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল-এর ২৩৬ তম সভায় সভাপতির ভাষণে মাননীয় উপাচার্য এসব কথা বলেন। 

মাননীয় উপাচার্য তাঁর ভাষণে একাডেমিক কাউন্সিল-এর সম্মানিত সদস্যবৃন্দকে স্বাগত ও আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, একাডেমিক কার্যক্রম হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণস্পন্দন।  একাডেমিক কার্যক্রমকে ঘিরেই বিশ^বিদ্যালয়ের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়। 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিরাজমান সৃজনশীল-আধুনিক-নান্দনিক একাডেমিক পরিবেশ সমুন্নত রাখতে প্রশাসন দৃঢ়-অঙ্গিকারাবদ্ধ।  বিশ্বের উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যোগাযোগ সুরক্ষার মাধ্যমে সামঞ্জস্যপূর্ণ মানসম্মত সিলেবাস প্রনয়ণ ও শিক্ষা বিনিময় কার্যক্রম পরিচালনা, নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়া, যথাসময়ে পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা, যুগোপযোগী গবেষণা-প্রকাশনা কার্যক্রম পরিচালনা ও গবেষণার ক্ষেত্র সম্পসারণ ইত্যাদি কার্যক্রমের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে বিশ্ব সভায় বিশেষ মর্যাদায় সমাসীন করার লক্ষ্যে সম্মানিত শিক্ষকবৃন্দকে বিবেক প্রসূত হয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে হবে।  

সভায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার উপস্থিত ছিলেন।  একাডেমিক কাউন্সিলের সচিব রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) জনাব কে এম নুর আহামদ এর এজেন্ডাভিত্তিক উপস্থাপনায় এ সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত ডিনবৃন্দ, বিভাগীয় সভাপতি এবং ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকবৃন্দ এবং সদস্যবৃন্দ তাঁদের সুচিন্তিত-জ্ঞানগর্ভ আলোচনা ও সুপারিশমালার আলোকে সভা প্রাণবন্ত হয়ে উঠে এবং এর সফল সমাপ্তি ঘটে। 

সভার শুরুতে এ বিজয়ের মাসে মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের সম্মানে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।  একাডেমিক কাউন্সিল-এর এ সভায় ১২ জনকে পিএইচ-ডি এবং ১৭ জনকে এম.ফিল, ০২ জনকে এমডি এবং ০১ জনকে এম.এস. ডিগ্রি প্রদানের সুপারিশ করা হয়।  উক্ত ডিগ্রি সমূহ অর্জনকারী গবেষকবৃন্দ এবং তাঁদের সুপারভাইজার ও কো-সুপারভাইজারবৃন্দকে আন্তরিক অভিনন্দন জ্ঞাপন করা হয়। 




keya