৬:৫৯ এএম, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, শনিবার | | ৬ রবিউস সানি ১৪৪০




"তাহলে কি মেধাবী কোটা ৪৪ শতাংশ" মানববন্ধনে প্রশ্ন রাবি শিক্ষার্থীর

০৪ মার্চ ২০১৮, ০৩:১৬ পিএম | সাদি


মেশকাত মিশু, রাবি প্রতিনিধি  : সরকারী চাকুরীতে কোটা ৫৬ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশ করা ও সবার জন্য অভিন্ন বয়সসীমা সহ পাঁচ দফা দাবিতে ৪র্থ দিনের মতো মানববন্ধন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।  রোববার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে কোটা সংস্কার আন্দোলন কমিটির আহবায়ক মাসুদ মোন্নাফের সঞ্চালনায় জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে এ মানববন্ধন শুরু হয়।  এ মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইসলামিক স্টাডিজ  বিভাগের শিক্ষার্থী মমিনুল ইসলাম, শিক্ষা গবেষণা ইন্সটিটিউটের নাসিম, সমাজকর্ম  বিভাগের রাব্বী, আইন বিভাগের মাহামুদুল হাসান এবং অন্যান্য শিক্ষার্থীরা। 

এসময় বক্তারা বলেন,  "বিসিএস, বিজেএস সহ ১ম ও ২য় শ্রেণীর চাকুরিতে নিয়োগে ৫৬% কোটা আছে কিন্তু ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণীর ক্ষেত্রে সেটা ৭০ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়, এমনকি প্রাথমিকে নিয়োগের ক্ষেত্রে যদি ৯৫ শতাংশ পর্যন্ত কোটা রাখা হয়েছে, "তাহলে কি মেধাবী কোটা ৪৪ শতাংশ...?"  আমরা মেধাবীরা কোথায় যাব ?" ।  আর আমরা যদি প্রতিবেশী দেশ ভারতের দিকে তাকাই তাহলে দেখতে পাব সেখানে মাত্র ১০% কোটা আছে এবং তারা তা প্রতিবছর সংস্কার করছে। 

এসময় তারা নিজেদের শোষিত ও নির্যাতিত দাবি করে বঙ্গবন্ধুর উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন,  "আজকের পৃথিবীতে দু'টি শ্রেণী একটি শাসক আর একটি শোষিত, আমি শোষিতের দলে" তেমনি ভাবে আমরাও শোষিত।  কিন্তু বাংলার মানুষ বার বার একটি প্রতিবাদী জাতি এদেশের মানুষ যতবার নির্যাতন বৈষম্যের স্বীকার হয়েছে ততবারই জেগে উঠেছে ।  আজ মেধার মূল্যায়ন না হওয়ায় মেধা বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে।  কোটার কারণে যোগ্যতা থাকা সত্বেও মেধাবীরা বঞ্চিত হচ্ছে।  এসময় শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্লেকার্ড বহন করতে দেখা যায়। 

অবিলম্বে তারা সরকারকে ৫ দফা দাবি মেনে নেয়ার আহবান জানান এবং কোটা সংস্কারের দাবিতে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন। 

‌মানববন্ধনে বক্তারা সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবালের উপর নৃশংস হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। 

‌মানববন্ধন শেষে  শিক্ষার্থীরা মৌন মিছিল  নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। 



keya