১১:৩৭ এএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

দারিদ্র্য নিয়ে মাহমুদা তুলির ফটোবুক

২৭ আগস্ট ২০১৭, ০৯:০৪ এএম | রাহুল


এসএনএন২৪.কমঃ ‘দারিদ্র্য’ শব্দটি যখন মাথায় আসে, সঙ্গে সঙ্গে ‘সংকট’ শব্দটিও চলে আসে।  কী কী সংকট হতে পারে দারিদ্র্যের ফলে? ভেবে দেখলাম, সবচেয়ে অদূরবর্তী সংকটটি হলো খাদ্য।  সিদ্ধান্ত নিই, যদি দারিদ্র্যের ছবি তুলি, তাহলে সেই সংকটগ্রস্ত মানুষগুলোর খাবারের ছবি তুলব। ” নিজের প্রকাশিত বই নিয়ে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন আলোকচিত্রী মাহমুদা তুলি। 

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এবার প্রকাশিত হয়েছে আলোকচিত্রী মাহমুদা তুলির আলোকচিত্র সম্পর্কিত বই ‘ফুড, বাই দ্য গ্রেস অব আল্লাহ’।  বইটি প্রকাশ করেছে প্রকাশনা সংস্থা ‘ঐতিহ্য’।   বইটির মূল্য ৪০০ টাকা। 

বইটির নামকরণ নিয়ে বলতে গিয়ে তুলি বলেন, ‘বইটির নাম মাথায় আসে মূলত সেইসব মানুষের খাবারের ছবি তুলতে গিয়ে, তাঁদের কথোপকথনের মধ্য থেকেই।  বইটিতে প্রতিটি ছবির সঙ্গে দেখবেন ছোট ছোট ‘কথোপকথন’ যুক্ত আছে।  যেগুলো তাঁদের কথা, যাঁরা খাবারগুলো খাচ্ছিলেন এবং বিক্রি করছিলেন।  বইটির শেষ যে ছবিটি আছে, সেই ছবির সঙ্গে একটা সুন্দর কথা আছে, ‘আল্লায় খাওয়াইছে, ভালোই খাইলাম। ’

মাহমুদা তুলি ২০১৬ সালে  ‘Pathashala South Asian Media Institiute’ থেকে আলোকচিত্র বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।  ২০০৮ সালে বিবিএস (সম্মান) এবং ২০১০ সালে এমবিএস (মার্কেটিং) ডিগ্রি অর্জন করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। 

পাঠশালায় পড়ার আগে থেকেই তুলি একটি নিউজ ম্যাগাজিন এবং একটি জাতীয় দৈনিকে আলোকচিত্র সাংবাদিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।  তিনি প্রধানত Documentary Photography করেন।  এ পর্যন্ত তিনি চারটি যৌথ আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন।   ২০১২ সাল থেকে কাজ করেন ড্রাগ ইস্যু নিয়ে।  তাঁর কনসেপচুয়াল সিরিজগুলোর মধ্যে ‘Self Portrait’, ‘Urbanisation’ ও River উল্লেখযোগ্য। 

তুলি আরো বলেন, ‘ছবি তুলতে আমার ভীষণ ভালো লাগে।  তবে হ্যাঁ, আমি সেই Random ছবি তোলার Practice থেকে বেরিয়ে এসেছি।  আমার মনে হয়, যখন আমার হাতে ক্যামেরা থাকে এবং আমি Shutter এর শব্দ শুনতে পাই, আমি হয়তো এক নেশাগ্রস্ত মানুষে রূপান্তরিত হই। ’

Abu-Dhabi


21-February

keya