৮:৫৫ পিএম, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার | | ৮ রবিউস সানি ১৪৪০




দেশের সবচেয়ে দূরত্বের ট্রেন সার্ভিস চালু শনিবার

০৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৭:০৯ পিএম | জাহিদ


এম.মোবারক হোসাইন, পঞ্চগড় : দেশের সবচেয়ে  দূরত্বের ট্রেন সার্ভিস চালু শনিবার। 

পঞ্চগড়বাসীর যাতায়াতের সুবিধার্থে শনিবার (১০ নভেম্বর) থেকে ঢাকা-পঞ্চগড় রুটে সরাসরি ট্রেন চলাচল শুরু হচ্ছে।  ঢাকা-পঞ্চগড় রুটের দূরত্ব হবে ৬৩৯ কিলোমিটার।  ২৩টি রেলস্টেশন ঘুরে ঢাকার এই ট্রেন যাবে পঞ্চগড়ে। 

৮ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হয়, ১০ নভেম্বর পঞ্চগড় থেকে ছেড়ে আসার মাধ্যমে এ ট্রেন চলাচল শুরু হবে। 

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বর্তমানে ঢাকা-দিনাজপুর রুটে দ্রুতযান এবং একতা ট্রেন চলাচল করে।  ফলে দিনাজপুর-পঞ্চগড় রুটের যাত্রীরা সরাসরি ঢাকায় আসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত ছিল।  দ্রুতযান এবং একতা ট্রেনের সার্ভিস বর্ধিত হয়ে পঞ্চগড় থেকে ঢাকার মধ্যে চলাচল করবে। 

ট্রেন দুটি পঞ্চগড়-দিনাজপুরের মধ্যে নতুন সময়সূচি অনুযায়ী এবং দিনাজপুর-ঢাকার মধ্যে পুরনো সময়সূচি অনুযায়ী চলাচল করবে।  এতে দিনাজপুর-পঞ্চগড় রুটের সাটল ট্রেন বন্ধ হয়ে যাবে বলেও জানিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দ্রুতযান ট্রেনটি পঞ্চগড় রেলস্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবে প্রতিদিন সকাল সাতটা ২০ মিনিটে।  ১০ ঘণ্টা ৫০ মিনিট পর ট্রেনটি ঢাকায় পৌঁছাবে সন্ধ্যা ছয়টা ১০ মিনিটে।  ঢাকা থেকে দ্রুতযান ছাড়বে প্রতিদিন রাত আটটায় এবং পঞ্চগড় পৌঁছাবে সকাল ছয়টা ৩৫ মিনিটে। 

একতা এক্সপ্রেস পঞ্চগড় থেকে ছাড়বে প্রতিদিন রাত নয়টা।  ট্রেনটি ঢাকায় পৌঁছাবে পরদিন সকাল আটটা ১০ মিনিটে।  ঢাকা থেকে একতা এক্সপ্রেস ছাড়বে প্রতিদিন সকাল ১০টায় এবং পঞ্চগড় পৌঁছাবে রাত পৌনে ৯টায়। 

দ্রুতযান ও একতা এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি সংখ্যা মোট ১৩টি।  প্রায় ১২০০ যাত্রী বহন করতে পারবে বলে জানান পঞ্চগড় রেলস্টেশন মাস্টার মোশাররফ হোসেন। 

তিনি এসএনএন২৪.কম’কে বলেন, দ্রুতযান ও একতায় প্রতিটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত (এসি) বার্থের ভাড়া ১ হাজার ৯৪২ টাকা, এসি চেয়ারের ভাড়া ১ হাজার ৫৩ টাকা, নন এসি বার্থের ভাড়া ১ হাজার ১৪৫ টাকা ও শোভন চেয়ারের ভাড়া ৫৫০ টাকা। 

৯৮২ কোটি টাকা ব্যয়ে রেল মন্ত্রণালয়ের আওতায় ২০১০ সালের অক্টোবরে মিটারগেজ রেলপথকে আধুনিকায়ন ও ডুয়েল গেজে রূপান্তরিত করতে তমা কনস্ট্রাকশন ও ম্যাক্স কনস্ট্রাকশন নামে দুটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করে।  দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থেকে ঠাকুরগাঁও হয়ে পঞ্চগড় পর্যন্ত ১৫০ কিলোমিটারের এ রেললাইনের নির্মাণ কাজ করা হয়।