১২:১৩ এএম, ২১ জুলাই ২০১৮, শনিবার | | ৮ জ্বিলকদ ১৪৩৯


ধুনটে যাতায়াতের পথে প্রাচীর দিয়ে বসতভিটা দখলের চেষ্টা

১২ জুলাই ২০১৮, ০৫:৪৪ পিএম | মাসুম


রফিকুল আলম, বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার ধুনট উপজেলায় যাতায়াতের পথে প্রাচীর নির্মান করে হতদরিদ্র এক পরিবারের বসতভিটা দখলের চেষ্টা করছে ধর্নাঢ্য ব্যক্তি। 

বৃহস্পতিবার সকালের দিকে গ্রাম আদালতের নির্দেশে চৌকিদারের বাঁধা অমান্য করে প্রাচীর নির্মান করায় অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে পরিবারটি। 

মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার রাজারামপুর গ্রামের হতদরিদ্র শুকুর আলী পৈত্রিক বাড়িতে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছে।  প্রতিবেশী আশরাফ মন্ডলের ধনার্ঢ্য ছেলে ছামাদ মন্ডল দরিদ্র ওই পরিবারের লোকজনকে বসতভিটা থেকে অবৈধভাবে উচ্ছদ করে জায়গা দখলের চেষ্টা করছে। 

তারই ধারাবাহিকতায় ২০১৭সালের ৮জুন ছামাদ মন্ডল নিজের বাড়ির সীমানায় প্রাচীর নির্মান শুরু করে।  তবে ওই প্রাচীর নির্মান করা হলে শুকুর আলীর বাড়ির যাতায়াতের পথ বন্ধ হয়ে যাবে।  এ কারনে শুকুর আলী ও তার পরিবারের লোকজন ওই সময় প্রাচীর নির্মান কাজে বাধা দেয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ছামাদ ও তার লোকজন শুকুর আলী ও তার পরিবারের লোকজনকে কুপিয়ে আহত করে। 

এ ঘটনায় থানায় দায়ের করা উভয় পক্ষের পৃথক দ’টি মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। 

এ ঘটনায় শুকুর আলী বাদী হয়ে ছামাদ মন্ডলের বিরুদ্ধে থানায় আরো একটি অভিযোগ দিয়েছে।  থানা পুলিশ অভিযোগটি তদন্ত করে বগুড়া আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেছে। বিচারক মামলাটি পুনঃতদন্তের জন্য গোপালনগর ইউনিয় পরিষদের চেয়ারম্যানকে
আদেশ দেন। 

এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকালে ছামাদ মন্ডল তার বড়ির সীমানায় প্রাচীর নির্মানের মাধ্যমে শুকুর আলীর বাড়িতে যাতায়াতের পথ বন্ধ করে দিয়েছে।  শুকুর আলী বলেন, ছামাদ মন্ডল ও তার লোকজনের ভয়ে বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছি। 

এ বিষয়ে ছামাদ মন্ডল বলেন, আমার বাড়ির নিরাপত্তার জন্য সীমানা প্রাচীর নির্মান করেছি। 

তবে, শুকুর আলীর বাড়িতে যাতায়াতের জন্য সরু পথ রাখা হয়েছে।  তার সাথে জমিজমা নিয়ে আমার কোন বিরোধ নেই। 

এ ঘটনায় আদালতের মামলা তদন্তাধীন রয়েছে।  এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকালে প্রাচীর নির্মানের অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে নিষেধ করা হয়েছে। 

ধুনট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খোকন কুমার কুন্ডু বলেন, প্রাচীর নির্মান নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে মারাপিটের ঘটনায় থানায় পৃথক দু’টি মামলা দায়ের হয়। 

ওই মামলা তদন্ত সাপেক্ষে উভয় পক্ষের আসামীদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে।  তবে নতুন করে প্রাচীর নির্মানের বিষয়ে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 



keya