৯:৩৪ পিএম, ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার | | ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




ধুনটে সরকারি গুদামে ধান ক্রয় বিলম্ব

১৪ মে ২০১৯, ০৫:৪২ পিএম | জাহিদ


রফিকুল আলম, ধুনট (বগুড়া) : বগুড়ার ধুনট উপজেলায় কৃষকদের কাছ থেকে আরও ২১ দিন আগেই (২৫ এপ্রিল) সরকারিভাবে ধান সংগ্রহ অভিযান শুরু হওয়ার কথা।  কিন্ত মঙ্গলবার পর্যন্ত তা শুরু করেনি কর্তৃপক্ষ।  

সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত এ উপজেলায় ধান সংগ্রহ চলার কথা।  এদিকে বাজারে ধানের দাম খুবই কম এবং সরকারিভাবেও ধান সংগ্রহে চলছে টালবাহানা।  এ অবস্থায় এ অঞ্চলের বোরো ধান চাষিরা লোকসানের ভয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। 

উপজেলা খাদ্য কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ধুনট উপজেলায় এবার সরকারিভাবে ৫০২ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করার কথা রয়েছে।  সরকারি ভাবে কৃষকদের কাছ থেকে প্রতি মণ ধান এক হাজার ৪০  টাকায় কেনার কথা।  কিন্তু এখনো উপজেলার খাদ্য বিভাগ ও মিল-চাতালের মালিকেরা ধান কেনা শুরু করেননি।  এ অবস্থায় হাটবাজারগুলোতে পানির দামে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন কৃষকেরা।  অথচ ২৫ এপ্রিল থেকে ধান ক্রয় শুরু হয়ে তা চলবে আগামী ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত।  

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার খাদুলী গ্রামের আব্দুল মজিদ নামে এক ব্যবসায়ী গ্রামে ঘুরে ঘুরে ধান কিনছিলেন।  তিনি বলেন, এবার ধানের দাম একেবারেই কম।  বিভিন্ন গ্রামের ধনীরা এখন কৃষকদের কাছ থেকে কম দামে ধান কিনে রেখে পরে সরকারি ক্রয়কেন্দ্রে বেশি দামে বিক্রি করবেন।  

পাঁচথুপি গ্রামের কৃষক আলমগীর হোসেন বলেন, গুদামে ধান দিতে পারলে কৃষকদের লাভ হতো।  কিন্তু গুদাম ধান নেওয়া শুরু না করায় ধানের দাম দিনে দিনে পড়ে যাচ্ছে।  একই গ্রামের কৃষক মহির উদ্দিন বলেন, তিনি সাংসারিক চাহিদা মেটাতে ৩ মণ ধান হাটে এনেছিলেন।  প্রতি মণ ধান ৫৫০ টাকা দরে বিক্রি করেছেন।  

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবীদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এবার বোরো ধানের ফলন ভালো হলেও বাজারে নতুন ধানের দাম কম থাকায় কৃষকদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।  তবে ব্যবসায়ী ও সরকারিভাবে ধান ক্রয় শুরু হলে চাষিরা লাভবান হবেন।  ধুনট উপজেলা খাদ্যনিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা পরিতোষ কুমার কুন্ডু বলেন,  সরকারি ভাবে ধান সংগ্রহ অভিযান শুরুর প্রস্তুতি চলছে।  আগামী সপ্তাহেই সরাসরি কৃষকের নিকট থেকে ধান কেনা শুরু হবে।