৩:৪০ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শনিবার | | ১১ মুহররম ১৪৪০


নওগাঁয় বিজিবির হাতে শিশুসহ ১০ রোহিঙ্গা আটক

১৩ নভেম্বর ২০১৭, ০৫:৪০ পিএম | নকিব


আব্দুল মন্নান, নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহার সীমান্ত এলাকা থেকে নারী-শিশু ও পুরুষসহ ১০ রোহিঙ্গাকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ(বিজিবি)। 

সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার মধইল বাজার থেকে তাদর আটক করা হয়।  তারা সকলে বার্মার আরাকান প্রদেশের আখিয়াব জেলার মন্ডু থানার বালিয়া বাজার এলাকার বাসিন্দা বলে জানা যায়। আটকরা হলেন, রোহিঙ্গা নুর আহম্মেদ (৪০), তার স্ত্রী লামিয়া খাতুন(৩২), ছেলে সৈয়দ আলম(২০),  সিরাজুল মোস্তফা (৬), আলকুমান(৫), নুরে মোস্তফা(৭মাস), মৃতঃ জাফর আলমের স্ত্রী রাবেয়া খাতুন(৩০), মেয়ে নুর নাহার(৩) ও শাহিদা (২) এবং ছাব্বির আহম্মেদের ছেলে আইয়ুব খান(২৪)। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকাল ৯ টার দিকে উপজলার সীমান্তবর্তী মধইল বাজার থেকে ছেড়ে আসা নওগাঁ গামী আর্মানীয়া পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস খঞ্জনপুরে  আসে।  এসময় এ সময় ওই ১০ রোহিঙ্গা তড়িঘড়ি করে বাসে উঠে।  স্থানীয়রা বুঝতে পেরে বিজিবি-১৪ কে খবর দেয়।  বিজিবি-১৪ খঞ্জনপুর কোম্পানী ক্যাম্পেরর সদস্যরা এসে ৫ শিশু, ২ নারী এবং ৩ পুরুষসহ ১০ জন্য রোহিঙ্গাকে আটক করে। 

রোহিঙ্গারা জানায়, বার্মা সরকারের সেনা সদস্যদের চলমান নির্যাতন ও হত্যাকান্ডের হাত থেকে জীবন বাঁচানোর তাগিদে বাংলাদেশে আশ্রয়ের উদ্যেশ্যে তিনটি পরিবার পালিয়ে এসেছে।  গত কয়েক দিন ধরে ওই পরিবারগুলো ভারতের অভ্যন্তরে বিভিন্ন স্থানে গোপনে মানবেতর ভাবে জীবন যাপন করছিল।  পরে ভারতের একটি দালাল চক্র তাদের বাংলাদেশে পার করে দেয়ার কথা বলে তাদের নিকট থাকা ৬০ হাজার টাকা নেয়।  এছাড়াও তাদের সাথে থানা ব্যাগ কেড়ে নেয় দালালরা।  সোমবার ভোর রাতে সীমান্ত পার করে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয় দালালরা।  এ দিকে সকালে ওই অসহায় রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ছোট ছোট শিশুদের সাথে নিয়ে উপজেলার মধইল বাসষ্ট্যান্ডে এসে নওগাঁ গামী যাত্রীবাহী বাসে উঠে।  তাদের গতিবিধি স্থানীয়রা বুঝতে পারে। 

বিজিবি-১৪ অধিনায়ক লে. কর্ণেল খিজির খাঁ সত্যতা নিশ্চত করে বলেন, ওই ১০ রোহিঙ্গাকে আটকের পর খঞ্জনপুর বিজিবি কোম্পানি ক্যাম্পে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।  তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন তথ্য পাওয়া যায়।  কক্সবাজারে বাংলাদেশের যে পূর্ণবাসন কেন্দ্র আছে সেখানে তাদের পাঠিয়ে দেয়া হবে। 


keya