১২:০২ এএম, ২৫ আগস্ট ২০১৯, রোববার | | ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




নাগরিকের আইনী অধিকার নিশ্চিত করতে আইনজীবীদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : চবি উপাচার্য

২১ মার্চ ২০১৯, ০৪:৪৬ পিএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুষদ এবং এ কে খান ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে ‘ÔThird A.K. Khan Memorial Law Lecture 2019’  চবি আইন অনুষদ এ কে খান মিলনায়তনে ২১ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ভাষণ দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের  উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।  বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন এ কে খান ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা ড. মো. আবদুল মাজেদ, চবি আইন অনুষদের সাবেক ডিন প্রফেসর ড. এম শাহ আলম ও বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান।  এতে ÔRight to Have Rights : Interface of Law and Development’ শীর্ষক কী-নোট স্পিকার হিসেবে বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ এশিয়ার প্রখ্যাত লিগ্যাল স্কলার Professor Dr. Yubaraj Sangroula। 

উপাচার্য তাঁর ভাষণে একটি গুরুত্বপূর্ণ ও সময়োপযোগী বিষয়ে লেকচার আয়োজন করায় আয়োজকবৃন্দকে বিশেষ ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানান।  তিনি বলেন, মানুষ জন্মগতভাবে ন্যায় বিচার পাওয়ার অধিকার রাখেন।  এ অধিকার নিশ্চিত করার দায়িত্ব আমাদের আইন পেশায় নিয়োজিত আইনজ্ঞদের।  উপাচার্য বলেন, আইন পেশা একটি মহৎ ও জনকল্যাণমূলক পেশা।  এ পেশায় নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ দেশের প্রচলিত আইনের সঠিক তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরা তাঁদের অন্যতম দায়িত্ব। 

উপাচার্য আরও বলেন, আইনি জটিলতায় উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হলে তা দেশের অর্থনীতির উপর বিরূপ প্রভাব ফেলবে।  তাই দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে হলে সকল নাগরিকের আইনি অধিকার নিশ্চিত করে বৈষম্য দূরীকণের মাধ্যমে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে হবে।  তিনি লেকচার প্রোগ্রামের সার্বিক সফলতা কামনা করেন।  পরে মাননীয় উপাচার্য আইন অনুষদের পক্ষ থেকে কী-নোট স্পিকার Professor Dr. Yubaraj Sangroula-কে সম্মাননা ক্রেষ্ট উপহার প্রদান করেন। 

Professor Dr. Yubaraj Sangroula-তাঁর বক্তৃতায় মরহুম এ কে খান এর স্মৃতির প্রতি বিনম্র শদ্ধা জানিয়ে বলেন, তাঁর বিস্তৃত কর্মজীবনে তিনি ন্যায় নিষ্ঠা ও আপোষহীন বিচারক, গণমুখী রাজনীতিবিদ. জনদরদী শিল্পপতি ও সমাজসেবক হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেন।  বাংলাদেশ তার ইতিহাসে এ ধরনের মহান ব্যক্তিত্বকে পেয়ে গর্বিত।  বিশে^ এ ধরণের বহুমুখী প্রতিভার সাক্ষাৎ বিরল ব্যতিক্রম হিসেবে কদাচিৎ মেলে।  ‘অধিকার অর্জনের অধিকার’ এই মূখ্য বিষয়ে অধ্যাপক যুবরাজ তার বক্তৃতায় উন্নয়নের সাথে আইনের শাসনের আন্তঃসম্পর্ক সনাক্তকরনের তাঁর অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। 

নেপালের সাবেক এটর্নি জেনারেল এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে একজন প্রবুদ্ধ আইন বিশারদ অধ্যাপক যুবরাজ তাঁর বক্তৃতায় উল্লেখ করেন আইনের অবাধ আশ্রয়ে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা পায়।  আইনের প্রযত্নেই সকল অধিকার অর্জনে টেকসই পরিস্থিতি সৃজিত হয় এবং লাগসই অবকাঠামো নির্মিত হয়।  যে অর্থনৈতিক উন্নয়নের সরোবরে অর্জিত অধিকার বিকশিত হয় তারমধ্যে আইনের আশ্রয় প্রশ্রয় গ্রহণের অবারিত অধিকারের অনিবার্যতা নিহিত-যুবরাজ তার বক্তৃতার সারমর্মে তা উল্লেখ করেন।  যুবরাজ তার বক্তৃতার উপান্তে আশা প্রকাশ করেন সকল সমাজ ও দেশে মানবাধিকার অর্জন ও বিকাশে আইনের মূল্যবোধ বিশেষ ভূমিকা পালন করে চলেছে তা দিনে দিনে আরো অর্থবহ হবে।  

চবি আইন অনুষদে ডিন প্রফেসর এ বি এম আবু নোমান-এর সভাপতিত্বে এবং সহকারী অধ্যপক জনাব সাঈদ আহসান খালিদের পরিচালনায় মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন ইস্ট ডেল্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর মু. সিকান্দর খান, চবি সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. ফরিদ উদ্দিন আহামেদ এবং চবি আইন অনুষদের সাবেক ডিন প্রফেসর মো. জাকির হোসেন। 

মরহুম এ কে খান-এর জীবন বৃত্তান্ত পাঠ করেন উক্ত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব হাসান মুহাম্মদ রোমান।  অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের সম্মানিত শিক্ষকবৃন্দ, আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ এবং বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।  


keya