১:০৮ এএম, ২৫ মে ২০১৯, শনিবার | | ২০ রমজান ১৪৪০




নাটোরে ফ্ল্যাশি ফ্ল্যাশ জুট মিলসের উদ্বোধন

১৪ মে ২০১৯, ১০:০৫ পিএম | জাহিদ


মো.রাশেদুল ইসলাম, নাটোর : নাটোর-২ (সদর ও নলডাঙ্গা) আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল বলেছেন, বর্তমান সরকার পাটজাত শিল্প-কারখানা স্থাপনের মাধ্যমে দেশের শিক্ষিত বেকার ছেলে মেয়েদের কর্মস্থানের সৃষ্টি করছে। 

দেশের কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পাটের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন।  পাটজাত পণ্য বিদেশে রপ্তানী করে বৈদেশীক অর্থ উর্পাজন হচ্ছে।  মঙ্গলবার (১৪ মে) বিকেল সাড়ে ৫ টার সময় সদর উপজেলার ঢাকোপাড়া এলাকায় ফ্ল্যাশি ফ্ল্যাশ জুট মিলস লিমিটেডের নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে তিনি এসব কথা বলেন। 

নাটোর ফ্ল্যাশি ফ্ল্যাশ জুট মিলস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর শিরফুল আলম তারেকের সভাপতিত্বে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য শিমুল বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় এসে আদমজী জুট মিল বন্ধ করে দিয়েছিল।  এতে দেশের হাজার হাজার শ্রমিকের কর্মসংস্থান হারিয়ে বেকার হয়ে পড়েছিলেন। 

জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর আদমজী জুট মিলসহ বিএনপি সরকারের বন্ধ করে দেয়া ছোট বড় মিল কারখানা পুনরায় চালু হয়েছে।  বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে।  তিনি বলেন, আগে কৃষকরা পাটের ন্যায্য মূল্য পায়নি।  এখন পাটজাত শিল্পকারখানা গড়ে উঠায় কৃষকরা পাটের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে।  বেকারদের কর্মসংস্থান হচ্ছে।  নাটোরে ফ্ল্যাশি ফ্ল্যাশ জুট মিলস নির্মাণ হলে হাজার হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে, কৃষকরা পাটের ন্যায্য মূল্য পাবে। 

ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য রত্না আহমেদ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী আহাদ আলী সরকার, পৌর মেয়র উমা চৌধুরী জলি, জজ কোর্টের পিপি সিরাজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগ সহ সভাপতি সামসুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ মর্তুজা আলী বাবলু, জেলা চামড়া ব্যবসায়ী গ্রুপের সভাপতি শরিফুল ইসলাম শরিফ, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি আব্দুল ওহাব, দিঘাপতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান খন্দকার ওমর শরীফ চৌহান, বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী মীর আমিরুল ইসলাম জাহান প্রমুখ। 

নাটোর ফ্ল্যাশি ফ্ল্যাশ জুট মিলস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর শিরফুল আলম তারেক জানান, প্রায় ৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রায় ৬ বিঘা জমির ওপর এই জুট মিলস নির্মান করা হচ্ছে।  এই মিলে  প্রতিদিন উৎপাদন ক্ষমতা হবে ২৫ মেট্রিক টন।  এরমধ্যে সুতা ১৮ মেট্রিক টন ও এশিয়ান ব্যাগ ৭ মেট্রিক টন।  এই জুট মিলে কর্মসংস্থান হবে অন্তত ৮০০ থেকে ১০০০ জন নারী-পুরুষের। 

তিনি বলেন, কৃষি পন্য উৎপাদনে উৎসাহিত করতে প্রধানমন্ত্রীর প্রনোদনা হিসাবে বস্তা উৎপাদনে শতকরা ১০ ভাগ ও সুতা উৎপাদনে শতকরা ৭ ভাগ ভুর্তুকি দিচ্ছে।  শতভাগ রপ্তানীর উদ্দ্যেশে এই জুল মিল থেকে উৎপাদিত এশিয়ান ব্যাগ ও সুতা রাশিয়া, ব্রাজিল, অষ্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, টার্কিস, চীন ও ভারতে রপ্তানী করা হবে।  এই মিল চালু হলে উত্তরাঞ্চলের সর্ব বৃহৎ জুট মিল হিসাবে গন্য হবে। 


keya