১০:৫৫ পিএম, ২৩ নভেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | | ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

নতুন কোচ নিয়ে তাড়া নেই বিসিবির

১২ নভেম্বর ২০১৭, ০৮:২৭ এএম | রাহুল


এসএনএন২৪.কম: চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে অবশেষে যোগাযোগ হয়েছে বিসিবির।  কিন্তু এখনও তার পদত্যাগ নিয়ে আলোচনা হয়নি। 

শেষ পর্যন্ত যদি সিদ্ধান্ত হয় হাথুরুসিংহে থাকছেন না তাহলে নতুন কোচ খুঁজতে থাকবে বিসিবি। 

বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজাও জানালেন, পরবর্তী ধাপে যাওয়ার আগে হাথুরুসিংহের চ‚ড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। 

শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলেন, ‘আমাদের সিইওর (নিজাম উদ্দিন চৌধুরী) সঙ্গে কোচের টেলিফোনে আলাপ হয়েছে।  তিনি যোগ দেবেন কিনা তা নিয়ে এখনও কোনো আলাপ হয়নি।  এর মধ্যে যদি তিনি না আসেন এবং সিদ্ধান্ত হয়ে যায় তাহলে আমরা নতুন একজন কোচের জন্য চেষ্টা শুরু করব। 

তিনি বলেন, ‘তবে নতুন কোচের জন্য খুব একটা তাড়াহুড়া করব না।  সময় নিয়ে দেখব।  তিন মাসের মতো লাগতে পারে।  আমাদের দলের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে পারে আর উপমহাদেশের মানসিকতার সঙ্গে পরিচিত কোনো কোচ হলে তো খুব ভালো হয়। 

ডিসেম্বরের শেষদিকে শ্রীলংকা বাংলাদেশ সফরে আসবে।  হাথুরুসিংহে না থাকলে এই সময়ে অন্তর্বর্তীকালীন হিসেবে একজন দেশি কোচ নিয়োগ দেয়া হবে।  আপাতত সিইও আলোচনা চালিয়ে যাবেন।  একই সঙ্গে বোর্ডও নতুন কোচের জন্য প্রস্তুতি নিতে থাকবে। 

মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান বলেন, ‘হাথুরুসিংহে যদি না আসে নিজেদের প্রস্তুতি নিয়ে রাখা ভালো।  ভালো কোচ পাওয়াটা খুব সহজ নয়।  ওরকম পেশাদার কোচ খুব কমই আছে।  সেজন্য আমরা চিন্তা করছি, সময় নেব। 

এদিকে বিপিএলে কাল রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে ম্যাচের পর রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা বলেন, ‘এই মুহূর্তে কোচকে নিয়ে মন্তব্য করা কঠিন।  তিনি যদি নাই থাকেন, বিকল্প তো আসলে জানি না, এখানে বসে মন্তব্য করা কঠিন।  তিনি নিশ্চিত করলে বিকল্প জানা যাবে।  বিসিবি চাইলে আমরা কিছু বলার চেষ্টা করব। 

তিনি বলেন, ‘এর আগে জেমি সিডন্স বা ডেভ হোয়াটমোর, তারাও সফল ছিলেন।  কে কখন সফল হয়ে যাবে এটা বলা খুব মুশকিল।  তবে অবশ্যই চিন্তা-ভাবনা করেই বিসিবি কোচের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে।  এখনও এ বিষয়ে চ‚ড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। 

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে দ্বিতীয় টেস্টের পরই হাথুরুসিংহে গোপনে বোর্ডের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।  তখন মাশরাফিও দক্ষিণ আফ্রিকাতে ছিলেন।  কিন্তু মাশরাফির সঙ্গে এ বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি কোচের। 

বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক বলেন, ‘আমি দুই সপ্তাহ সেখানে ছিলাম।  সে সময়ে তার সঙ্গে অনেক ইতিবাচক কথা হয়েছে।  ওই সময়ে আমরা একটা ম্যাচ জেতার জন্য অনেক চেষ্টা করছিলাম।  এ ধরনের কথাই হচ্ছিল।  পদত্যাগ করতে পারেন বা এ ধরনের কিছু নিয়ে কোনো কথাই বলা হয়নি। 

Abu-Dhabi


21-February

keya