১:২৪ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

নান্দাইলে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে পেশী শক্তিতে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন

০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৪:০৮ পিএম | রাহুল


মো. শাহজাহান ফকির , নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার বরিল্যা কে. এ. উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের পদ নিয়ে পারস্পরিক দ্বন্ধের জের ধরে বিজ্ঞ আদালতে মামলা ও বিভাগীয় কর্তৃপক্ষের একাধিক নির্দেশ ও সর্বশেষ স্থানীয় সংসদ সদস্যের ১৬/০৪/২০১৪ইং তারিখে প্রধান শিক্ষক রোসমত আরা বেগমের নিয়োগ অবৈধ, জালিয়াতি ও কারচুপিমূলক উল্লেখ করে তার এম.পি.ও বাতিল পূর্বক সহকারী প্রধান শিক্ষক আজহারুল ইসলামকে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালনের সুপারিশ করেন। 

পরবর্তীতে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকার স্মারক নং- জি-২২৯১-ম/২০১৩ তাং- ১০/০৪/২০১৪ মূলে রোসমত আরা বেগমের বেতন ভাতার সরকারী অংশের এম.পি.ও কপিতে ষ্টপ পেমেন্ট এর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ প্রদান করা হয়।  পরবর্তীতে একই অধিদপ্তর স্বারক নং- ৪/২২৯১/ম-২০১৩/৩৩৯৪/০৮ তাং ০৩/০৪/২০১৪ মূলে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আজাহারুল ইসলামকে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালনের নির্দেশ প্রদান করা হয়। 

উল্লেখ যে, জালিয়াতির মাধ্যমে নিয়োগ প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রোসমত আরা বেগম নিজ দায়িত্বে টিকে থাকার দাবীতে বিজ্ঞ সিনিঃ সহকারী জজ আদালতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আজহারুল ইসলাম গংদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।  মামলা নং- ১৭৭/২০১২/অন্য

উক্ত মামলার বাদী রোসমত আরা বেগম একই আদালতে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোস্তফা খালিদ খোকন এর বিরোদ্ধে একই দাবী তে আরও একটি মামলা দায়ের করেন।  মামলা নং ১০৯/অন্য/২০১২।  বিজ্ঞ আদালতে উভয় মামলার চুড়ান্ত রায় বাদীর প্রতিকূলে ঘোষিত হয়।  এ অবস্থায় প্রধান শিক্ষকের নিয়োগ জটিলতা প্রশাসনিক ভাবে নিস্পত্তি হলেও রোসমত আরা বেগম স্থানীয় পেশী শক্তির মাধ্যমে নিজেকে প্রধান শিক্ষক হিসেবে সেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে টিকিয়ে রেখেছেন। 

স্থানীয় এলাকাবাসী বিদ্যালয়ের স্বার্থে এ অবস্থার অবসনের লক্ষে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের দ্রুত হস্তক্ষেপের দাবী জানিয়েছে।  এ নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।