৯:১৬ এএম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১৪ মুহররম ১৪৪০


নান্দাইলে জুয়ার আসরে এলাকায় চুরি-ছিনতাই বৃদ্ধি

০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৩:০০ পিএম | জাহিদ


মো.শাহজাহান ফকির, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : নান্দাইলে জুয়ার আসরের কারনে এলাকায় চুরি ছিনতাই বৃদ্ধি পাচ্ছে।  উপজেলার কয়েকটি স্থানে চলছে জমজমাট জুয়ার আসর। 

দিনে-রাতে জুয়াড়িদের আনাগোনায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে এলাকার মানুষ।  সেই সাথে চলছে মাদক সেবন ও ব্যবসার কাজ।  একটি মাদক চক্র এতে লাভের স্বার্থে ধ্বংস করছে যুবসমাজকে।  যার ফলে চুরি-ছিনতাইয়ের ঘটনা দিন দিন বাড়ছে।  রোববার (৯ই সেপ্টম্বর) মুশুলী ইউনিয়নে এক রাতে ৭ গরু চুরি হয়ে যায়।  কৃষকের ক্ষতি হয় ৩ লক্ষাধিক টাকা। 

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান, অনেক চেষ্টা করেও জুয়ার আসার বন্ধ করতে পারছেন না। 

এক সূত্র ও সরজমিন খোজঁ নিয়ে জানা যায়, পেশাদার জুয়াড়িরা এই জুয়ার আসরের সাথে জড়িত। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন জানান, মুশুলী ইউনিয়নের আগমুশুলি গ্রাম, ফরিদাকান্দা গ্রামের রেললাইনের আশেপাশে, নয়াপাড়ার গ্রামের কুড়েরপাড় ও গোয়ালপাড়া এলাকা এবং রাজগাতী ইউনিয়নের ফরিদাকান্দা গ্রামের রেললাইনের আশেপাশে সহ বেশ কয়েকটি জায়গায় জুয়ার আসরগুলো বসানো হচ্ছে। 

পার্শবর্তী কিশোরগঞ্জ, তাড়াইল ঈশ্বরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার বড় বড় জুয়াড়িরা এসব আসরে জুয়া খেলতে আসেন।  এসব আসরে চলে মধ্যরাত পর্যন্ত জুয়া।  অভিযোগ উঠেছে উত্তরমুশুলী এলাকার আমীর হোসেনের ছেলে মুর্শিদ মিয়া ও ফরিদাকান্দা গ্রামের সুহেল মিয়া নিজ এলাকায় বিভিন্ন স্থানে জুয়ার আসর জমিয়ে দেদারছে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।  সাথে সহযোগি হিসেবে রয়েছে ৮/১০জনের একটি চক্র। 

মুশুলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইফতিকার উদ্দিন ভূঁইয়া বিপ্লব বলেন, ‘ স্থানীয়ভাবে চেষ্টার পর আমি উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় জুয়ার বিষয়টি তুলে ধরেছি।  কিন্তুু এর কোন সুরাহা এখন পর্যন্ত পায়নি। ’ ইউপি সদস্য ওমর ফারুক ও কালাম মেম্বার বলেন, ‘পর পর জুয়ার আসরে ধাওয়া করার পরেও তা বন্ধ করতে পারেনি।  তারা বারংবার স্থান পরিবর্তন করে জুয়ার আসর বসায়। ’ এ ব্যাপারে স্থানীয় এলাকাবাসী যুবসম্প্রদায়কে রক্ষা করতে প্রসাশনিক ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবী জানান।