৯:৩০ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ১৭ সফর ১৪৪১




নিবিড় নজরদারিতে রয়েছে জামিনপ্রাপ্ত জঙ্গিরা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

২৪ জুন ২০১৯, ০৮:২৭ পিএম | নকিব


এসএনএন২৪.কম : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সংসদে জানিয়েছেন, জঙ্গি হামলা প্রতিরোধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি জামিনে মুক্তিপ্রাপ্ত, সাজাপ্রাপ্ত ও আটক জঙ্গিদের নিবিড় নজরদারিতে রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।  

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বাজেট অধিবেশনে আজ মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের (সুনামগঞ্জ-১) লিখিত প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ তথ্য জানান।  

এর আগে বিকেল সোয়া ৫টায় দিনের কার্যসূচি শুরু হয়।  প্রশ্নোত্তর পর্ব টেবিলে উত্থাপিত হয়।  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও জানান, বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ দমনের সফলতা বিশ্বে রোল মডেল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।  জঙ্গি হামলা প্রতিরোধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। 

জঙ্গি দমনে বাংলাদেশ পুলিশের স্পেশালাইজড ফোর্স গঠনের পাশাপাশি উপযুক্ত প্রশিক্ষণ, অপারেশনাল ও লজিস্টিকস সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। 

গোয়েন্দা নজরদারি এবং আধুনিক তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে স্বল্প সময়ের মধ্যে জঙ্গি আস্তানা, জঙ্গিদের অবস্থান শনাক্তপূর্বক গ্রেফতার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। 

এছাড়া জঙ্গি সংশ্লিষ্ট কাজের সঙ্গে জড়িতদের শনাক্তকরণের সুবিধার্থে এলাকা ভিত্তিক ভাড়াটিয়াদের তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ এবং বিডি পুলিশ হেল্প লাইন, হ্যালো সিটি ও রিপোর্ট টু র‌্যাব প্রভৃতি অনলাইন অ্যাপস চালু এবং গণসচেতনতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। 

গুজব ছড়িয়ে যাতে স্থিতিশীলতা বিঘ্নিত করতে না পারে, সে ব্যবস্থা করা হচ্ছে: 

বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহর ( সুনামগঞ্জ-৪) লিখিত প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, বর্তমানে দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।  সরকার দেশের আইন-শৃঙ্খলা ও জনগণে জানমালের নিরাপত্তা বিধান ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।  

তিনি আরও জানান, কোন ব্যক্তি গোষ্ঠী দল যাতে গুজব বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচার করে সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি বা সামাজিক স্থিতিশীলতা বিঘ্নিত করতে না পারে, সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।  সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মদদদাতা ও পরিকল্পণাকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। 

দেশের সীমান্তবর্তী জেলাসমূহে অবৈধ অস্ত্র, গোলাবারুদ এবং মাদকের অনুপ্রবেশ রোধে পুলিশের সার্বক্ষণিক নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। 

সন্ত্রাস/জঙ্গি কর্মকান্ড নির্মূল/ প্রতিরোধে ইতোমধ্যে এন্টি টেরোরিজম ইউনিট গঠন করা হয়েছে এবং ডিএমপিতে কাউন্টার টেররিজম এন্ড ট্রানসন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট গঠন করে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।