১:২৫ পিএম, ২৫ আগস্ট ২০১৯, রোববার | | ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০




পাটগ্রামে সেতুর সংযোগ সড়ক ভেঙে ভীষণ দুর্ভোগ

১৭ জুলাই ২০১৯, ০৪:২০ পিএম | নকিব


আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার জোংড়া ইউনিয়নের জোংড়া থেকে ধবলগুড়ি যাতায়তের জন্য ৫ নম্বর ওয়ার্ডের জোড়াপুল নামক আঞ্চলিক সড়কে অবস্থিত সেতুরটির সংযোগ সড়ক ধসে যাওয়ায় প্রায় ২০ হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছেন।  মানুষ ঝুঁকি নিয়ে যাতায়ত করছে নৌকায়। 

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, গত রোববার রাতে পার্শ্ববর্তী ধরলা নদীর বন্যার পানির তোড়ে সেতুটির সংযোগ সড়কটি ধসে যায়।  এর ফলে সেতুটির পূর্ব ও পশ্চিম উভয় দিকে ধবলগুড়ি, নন্দেরঘাট, ডাঙ্গাপাড়া, বড়ভিটা, মন্ডলেরটারী, মন্দিরপাড়া গ্রামের প্রায় ২০ হাজার গ্রামবাসী চরম দুর্ভোগে পড়েন।  ওই সব গ্রামের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাতায়তে সমস্যায় পড়েছে।  কৃষক ও ব্যবসায়ীরা তাদের কৃষিপণ্য নৌকায় করে পারাপার করছে। 

জোংড়া ন্যাশনাল উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী জুঁই খাতুন ও লিপসি আক্তার বলেন, সেতুর সংযোগ সড়কটি ভেঙ্গে যাওয়ায় আমাদের বিদ্যালয়ে যাতায়াতে সমস্যা হচ্ছে।  আমরা নৌকায় ঝুঁকি নিয়ে যাতায়ত করছি। 

ধবল গুড়ি গ্রামের ভ্যানচালক দুলাল হোসেন (৪০) বলেন, সেতুর সাথে রাস্তাটি ভেঙে যাওযায় আমরা মালামাল নিয়ে দূরদূরান্তে যেতে পারছি না।  বর্তমানে দূরের ভাড়া পাচ্ছি না, গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে।  গাড়ি না চালালে আমরা খাব কী। 

লালমনিরহাট জেলা পরিষদের সদস্য মো. ফরহাদ হোসেন লিটন বলেন, জোংড়া থেকে ধবলগুড়ি যাতায়তের জন্য ৫ নম্বর ওয়ার্ডের জোড়াপুল নামক আঞ্চলিক সড়কে অবস্থিত সেতুটির সংযোগ সড়ক ধসে যাওয়ায় আমরা নৌকায় ঝুঁকি নিয়ে যাতায়ত করছি।  এটি দ্রুত মেরামত করা না হলে জনদূর্ভোগ বেড়ে যাবে। 

জোংড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আশরাফ আলী মানুষের দুর্ভোগের কথা স্বীকার করে বলেন, দ্রুত ভেঙে যাওয়া সেতুটির সংযোগ রাস্তাটি দিয়ে মানুষের চলাচলের জন্য বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে দেওয়া হবে। 

পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল করিম জানান, বন্যায় সেতু সংযোগের রাস্তা ভেঙে যাওয়া ও স্থানীয় লোকজনের সমস্যার কথা জানতে পেরে ঘটনাস্থল ঘুরে এসেছি।  রাস্তাটি দ্রুত মেরামত করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।