১১:০৭ এএম, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, শনিবার | | ২৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

পত্নীতলায় ৫০ টাকার জন্য ক্রেতার গায়ে আগুন

০৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৮:১৫ পিএম | রাহুল


আব্দুল মান্নান, নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁর পত্নীতলায় পাওনা ৫০টাকা না দেয়ায় এক ক্রেতার গায়ে পেট্রোল দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে চা দোকানী। 

মারাত্মক আহতাবস্থায় ক্রেতা আলিমুলকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।  মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার নজিপুর পৌর সদরের ঠুকনীপাড়া মোড়ে চায়ের দোকানে এ ঘটনা ঘটে। 

ক্রেতা আলিমুল উপজেলার কাশিপুর দক্ষিণ পাড়া গ্রামের বেলাল হোসেনের ছেলে।  আর চায়ের দোকানী তাপস কুমার মহন্ত উপজেলার একই গ্রামের তপন চন্দ্রের ছেলে।  ঘটনার পর থেকে দোকানী তাপস কুমার পলাতক রয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নজিপুর পৌর সদরের ঠুকনীপাড়া মোড়ে তাপস কুমার চায়ের দোকান দিয়ে ব্যবসা করে আসছে।  সেখানে ক্রেতা আলিমুল নিয়মিত চা পান করত।  এক পর্যায়ে চায়ের দোকানে আলিমুলের ৫০ টাকা বাকী পড়ে।  মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে আলিমুল দোকানে চা পান করতে গেলে দোকানী তাপস কুমার তাকে বকেয়া টাকা পরিশোধের জন্য তাগাদা দেয়। 
দোকানীকে আলিমুল পরে টাকা পরিশোধ করবে বলে জানায় এবং দোকান থেকে চলে যাওয়ার জন্য উদ্যত হয়।  এতে দোকানী তাপস কুমার উত্তেজিত হয়ে পাশের দোকানে থাকা পেট্রোল নিয়ে এসে আলিমুলের গায়ে ছুড়ে মেরে আগুন ধরিয়ে দেয়।  আকষ্মিক ভাবে দ্রুত গতিতে আগুন আলিমুলের শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। 

স্থানীয়রা আলিমুলকে সাথে সাথে পাশের ডোবার পানিতে নামিয়ে দেয়।  আগুন নিভে গেলে তাকে উদ্ধার করে পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়।  আগুনে আলিমুলের শরীরের বিভিন্ন স্থান পুড়ে যাওয়ায় ডাক্তারের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। 

পত্নীতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ভুক্তভোগীর পরিবার থেকে কোন অভিযোগ বা মামলা হয়নি।  ভুক্তভোগীকে তার পরিবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দিচ্ছেন। 

পরিবার সূত্রে জানা যায়, শরীরের প্রায় ৩০ শতাংশ পুড়ে গেছে।  আর দোকানী তাপস কুমার পলাতক থাকায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি।  তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।