৫:৫৯ এএম, ৭ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার | | ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪১




পিরোজপুরে র‌্যাবের হাতে ৫ ভূয়া ডাক্তার আটক।

০৬ জানুয়ারী ২০২০, ০৫:৫৫ পিএম | নকিব


মুহাঃ দেলোয়ার হোসাইন,পিরোজপুর :  পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলা সদর  থেকে পাঁচ ভূয়া ডাক্তারকে আটক করেছে র‌্যাব-৮, বরিশালের একটি  দল।  সোমবার দুপুরে ভাÐারিয়া  শহরে অভিযান চালিয়ে ৪জন ভুয়া দন্ত চিকিৎসক ও একজন ভুয়া হারভাঙা চিকিৎসককে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে  বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ডাদেশ প্রদান করেছেন। 

এ ছাড়া আটককৃত ৫জন ভুয়া চিকিৎসকের ৫টি চেম্বার ও ক্লিনিক সিলগালা করা হয় এবং ক্লিনিকের ঘর মালিককেও  জড়িমানা করা হয়। 

 বরিশাল র‌্যাব-৮ এর প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া থানাধীন ভান্ডারিয়া উপজেলা সদরে কয়েকজন ভূয়া ডাক্তার লোকজনকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে এমন সংবাদ প্রাপ্তিতে র‌্যাব-৮, বরিশালের একটি আভিযানিক দল   মোঃ ইয়াসিন খন্দকার, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পিরোজপুর ও ডাঃ মোঃ এ.আইচ.এম. ফাহাদ, মেডিকেল অফিসার, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ভান্ডারিয়া এর সমন্বয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এবং হাতেনাতে শামীম আকন, জনতা ডেন্টাল কেয়ারের মোঃ ফাইজুল হক রানা, মডার্ন ডেন্টাল কেয়ারের মোঃ বাবুল হোসেন, মহিউদ্দিন আহম্মেদ পলাশ, জসিম উদ্দিন শাহীন ও শামীম আকনকে আটক করে।  ভবন মালিক আব্দুল কাদের হাওলাদারকেও আটক করা হয়। 

মোবাইল কোর্টের ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইয়াসিন খন্দকার আটককৃত শামীম আকনকে ২ বছরের জেল, মোঃ ফাইজুল হক রানাকে ৬ মাসের ,মহিউদ্দিন আহম্মেদ পলাশকে ৬ মাসের, জসিম উদ্দিন শাহীনকে ৪ মাস ও মোঃ বাবুল হোসেনকে ২ মাস এবং আব্দুল কাদের হাওলাদারকে শামীম আকনকে বাসা ভাড়া দিয়ে উক্ত কাজে সহযোগিতা করার দায়ে ১৫,০০০/- টাকা জরিমানা করেন।  ৫ জন ভূয়া ডাক্তারের ৫টি চেম্বার ও ক্লিনিক সিলগালা করা হয়। 

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইয়াসিন খন্দকার জানান, তাদের সম্মূখে আটককৃতরা তাদের স্বপক্ষের কোনো বৈধ কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ  হওয়ায় এবং দোষ স্বীকার করায়  ভ্রাম্যমান আদালত তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করে।