২:৫৮ পিএম, ১৮ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার | | ১৪ শাওয়াল ১৪৪০




পুলিশের হাতে ট্রেন যাত্রী লাঞ্চিতের ভিডিও ভাইরাল

৩১ মে ২০১৯, ১০:১৯ এএম | জাহিদ


আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাট : লালমনিরহাটে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার্থীদের ও ট্রেন যাত্রীকে ধাক্কা দিয়ে লাঞ্চিত করেছেন বুড়িমারী ক্যাম্পের পুলিশ সদস্যরা।  এ সময় জাগো নিউজের লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি রবিউল হাসান ভিডিও ধারন করতে গেলে তাকেও লাঞ্চিত করেন এবং গালা গালি করেন। 

ট্রেন যাত্রীকে ধাক্কা দিয়ে নেমে দেওয়া ভিডিওটি ভাইরাল হলে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে লালমনিরহাট বুড়িমারী রেলরুটের হাতীবান্ধা উপজেলার বড়খাতা রেলওয়ে স্টেশনে লাঞ্চিতের এ ঘটনা ঘটে। 

রেলস্টেশনের যাত্রী ও স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার (৩১ মে) প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার কারনে বুড়িমারী থেকে ছেড়ে আসা পার্বতিপুর গামী কমিউটার ট্রেনে যাত্রীদের ছিল উপচে পড়া ভিড়।  পাটগ্রাম ও হাতীবান্ধা উপজেলার পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্র ছিল লালমনিরহাট শহরে।  তাই একদিন আগে  কেন্দ্রে পাশে আত্মীয় ও আবাসিক হোটেলে আশ্রয় নিচ্ছেন পরীক্ষার্থীরা। 

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার দিকে বুড়িমারী থেকে ছেড়ে আসা পার্বতিপুর গামী কমিউটার ৬৬ নং ট্রেনটি বড়খাতা স্টেশনে দাঁড়ালে ২নং বগিতে উঠতে চেষ্টা করেন হাসিনা আক্তার, ফারজানা খাতুন ও লাবন্য আক্তার নামে এক পরীক্ষার্থী।  এ সময় ওই বগির গেটে দাঁড়িয়ে থাকা পোশাকধারী ৩ পুলিশ আসন নেই বলে তাকে উঠতে নিষেধ করেন।  কিন্তু পরীক্ষার কারনে তাকে যেতেই হবে বলে গেট থেকে সড়ে যেতে বলেন যাত্রীরা।  এক পর্যয়ে তাদের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়।  এতে ক্ষিপ্ত হয়ে যাত্রীকে ধাক্কা দেন পুলিশ সদস্য।  যাত্রীকে ও সাংবাদিককে ধাপ্পর দেয়ার উদত্ত হন সাদ্দাম নামে এক পুলিশ সদস্য।  

শিক্ষার্থীও মহিলা যাত্রীর উপর পুলিশের এমন আচরন ক্যামেরাবন্দি করতে এগিয়ে গেলে স্থানীয় সাংবাদিক রবিউল হাসান সাথেও বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন ওই পুলিশ সদস্যরা।  এ সময় ওই সংবাদকর্মীকে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করে তাকেও মারতে উদত্ত হন পুলিশ সদস্যরা। 

পুলিশ সুত্রে জানান, পাটগ্রাম উপজেলা বুড়িমারী ক্যাম্পের দায়িত্ব পালন শেষে ওই ট্রেনে রংপুরে ফিরছিলেন তারা।  তবে তারা ওই পরীক্ষার্থী ও যাত্রীর সাথে যে আচরন করেছেন তা শোভনীয় নয়।  

পরে ট্রেনের বাঁশি বাজলে ট্রেন  যাত্রা শুরুকরে।  কিন্তু ওই ট্রেনে প্রায় ৩০ জন পরীক্ষার্থী যাত্রী যেতে পারেননি।  

এ যাত্রীর সাথে পুলিশের বাকবিতন্ডার এই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হলে মুহুর্তেই তা ভাইরাল হয়ে পড়ে।  প্রতিবাদের ঝড় উঠে এবং পুলিশের আচরন ও দায়িত্ব নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।  তদন্ত করে বিচার দাবি করেন অনেকেই। 

ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিক রবিউল হাসান জানান, ট্রেনে আসন ছিল না ঠিকই।  তবে দাঁড়িয়ে যেতে পারত পরীক্ষার্থী যাত্রীরা।  কিন্তু ট্রেনের গেটে তিন পুলিশ যুবক দাঁড়িয়ে থাকায় কোন যাত্রী উঠতে পারেনি বা উঠতে দিচ্ছিল না পুলিশ সদস্যরা। 

পাটগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনের মাষ্টার আকছার আলী বলেন, আজ পার্বতিপুর গামী কমিউটার ৬৬ নং ট্রেনটিতে কোন পুলিশ সদস্য বুকিং বা রির্জাভ করেননি। 

হাতীবান্ধা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ওমর ফারুক বলেন, ভিডিওটি দেখে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ঘটনাটি তদন্ত করে পুলিশ সদস্যদের চিহ্নিত করে প্রাথমিক তথ্য পাঠানো হয়েছে।  পুলিশ সদস্যরা রংপুর রেঞ্জের রিজার্ভ ফোর্সের (আরআরএফ) সদস্য ছিলেন।