৯:৩৩ এএম, ৪ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার | | ১২ শাওয়াল ১৪৪১




বোর্ডিং স্কুলের ১২ ছাত্রীকে ধর্ষণ

৩০ নভেম্বর -০০০১, ১২:০০ এএম | মোহাম্মদ হেলাল


ভারতের মহারাষ্ট্রে একটি আবাসিক স্কুলের অন্তত ১২ জন ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সাতজন শিক্ষকসহ মোট ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে স্কুলটির প্রধান শিক্ষকও রয়েছেন।  এ ঘটনায় আরও কয়েকজন শিক্ষককে গ্রেফতার করা হতে পারে বলে পুলিশ জানিয়েছে। 

মুম্বাই থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দূরের বুলদানা জেলায় নিনাধি আশ্রম নামের ওই বেসরকারি আবাসিক স্কুলে আদিবাসী ছাত্রীরা পড়াশোনা করে। 

যাদের ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ, তারা সবাই ১২ থেকে ১৪ বছর বয়সী। 

সম্প্রতি দিওয়ালির ছুটিতে ছাত্রীরা বাড়ি গিয়েছিল।  জলগাঁও জেলার হালখেড়া গ্রামের তিন ছাত্রীও ওই স্কুলে পড়ে।  অন্যান্যদের মতো ছুটোছুটি না করে চুপচাপ বসেছিল দেখে তাদের আত্মীয়-স্বজনরা জানতে চান কী হয়েছে।  তখন ওই ছাত্রীরা জানায় তাদের পেটে ব্যথা, ভেতরে একটা ভারী কিছু আছে বলে মনে হয় সবসময়ে। 

ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হলে দেখা যায় তারা সন্তানসম্ভবা। 

তখনই ধর্ষণের ঘটনাটি জানা যায়।  প্রথমে জলগাঁও জেলার পুলিশ এবং তারপরে বুলদানা জেলা পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের হয়। 

মহারাষ্ট্রের পুলিশ মহানির্দেশক সতীশ মাথুর আজ এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, সাতজন শিক্ষক এবং চারজন কর্মচারী ইতোমধ্যেই গ্রেফতার হয়েছেন।  ঘটনার তদন্তে ছয়জন অফিসারকে নিয়ে একটি বিশেষ তদন্তকারী দল তৈরি করা হয়েছে। 

অন্যদিকে যে ছাত্রীদের ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ, তাদের চিকিৎসার জন্য আকোলা জেলার একটি হাসপাতালে রাখা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।  সূত্র: বিবিসি বাংলা


keya