৫:৫০ এএম, ১৯ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ৬ জ্বিলকদ ১৪৩৯


বর্ষাকালে পাহাড় ভ্রমণে সতর্কতা

১২ জুলাই ২০১৮, ০৩:১৭ পিএম | মাসুম


এসএনএন২৪.কম : অনেকেই হয়তো ভাবছেন এখন বর্ষাকাল।  বৃষ্টির কারণে এ সময় ঘর থেকেই যেখানে বের হওয়া যায় না সেখানে ভ্রমণ কীভাবে সম্ভব? তাও আবার পাহাড়ে ভ্রমণ! মন চাইলে সবই সম্ভব।  বিশেষ করে যারা বর্ষায় প্রকৃতির রূপ দেখতে চান তারা বৃষ্টি উপেক্ষা করে এই ভরা বাদলেও ভ্রমণের প্রস্তুতি নিতে পারেন। 

কারণ  বর্ষায় প্রকৃতির রূপ খোলে।  সবুজ হয়ে ওঠে গাছপালা।  পাহাড়ী ঝর্ণায় দেখা যায় জলের উল্লাস।  ফলে পাহাড়প্রেমিকেরা পা বাড়ান সেদিকে।  কিন্তু পাহাড়ে ঘুরে বেড়ানোর কিছু নিয়ম রয়েছে।  সতর্ক হতে ভ্রমণের আগে সেগুলো আপনাকে জানতেই হবে। 

সময়টা যেহেতু বর্ষা সেহেতু সঙ্গে রেইনকোট রাখুন।  নইলে হোটেল রুমে বসেই দিন কাটাতে হতে পারে।  পাশাপাশি ছাতা, ক্যাপ, সানগ্লাস আপনাকে বাড়তি সহায়তা করবে। 


পাহাড়ে বৃষ্টির এ সময়ে জোঁক অসম্ভব কিছু নয়।  জোঁকের হাত থেকে বাঁচতে সঙ্গে গুল রাখুন।  অথবা যদি আগে থেকেই এ বিষয়ে জানতে পারেন তাহলে সতর্ক হতে পায়ে কেরোসিন লাগিয়ে নিন। 

পাহাড়ি মশার জন্য ভ্রমণপিপাসুদের দুর্গতি নতুন কিছু নয়।  মশার হাত থেকে বাঁচতে সঙ্গে অডোমস ক্রিম রাখুন।  সম্ভব হলে ছোট মশারিও রাখতে পারেন।  মশা যাতে না কামড়ায় সেদিকে খেয়াল রাখুন।  ফুলহাতা জামা ও পাজামা পরুন। পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেটও রাখতে হবে। 

পাহাড়ে হাঁটতে গিয়ে উরুতে ঘা হতে পারে।  সঙ্গে বেটনোবেট ওয়েন্টম্যান্ট ক্রিম রাখুন।  অবশ্যই গামছা রাখতে হবে।  বৃষ্টিতে ভিজলে সঙ্গে সঙ্গে শরীর,মাথা মুছে ফেলুন। 

পাহাড়ে হাঁটার সময় এক জায়গায় অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকবেন না।  মশা, জোঁক কামড়াবে। লাঠি এবং ট্রেকিং উপযোগী জুতা সঙ্গে রাখুন।  কারণ এ সময় পাহাড়ি রাস্তা পিচ্ছিল থাকবে এটাই স্বাভাবিক। 

বৃষ্টির মধ্যে পাহাড়ে না ওঠাই ভালো।  তবে মাঝপথে বৃষ্টি এলে অতিরিক্ত সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। পাহাড় ভ্রমণ করে ফেরার পর যদি জ্বর হয় তবে অবশ্যই দ্রুত বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন।