৫:৫৭ এএম, ২৩ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার | | ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১




রাশেদ খান মেনন

বাংলাদেশ কখনই দায়ী নয়' রোহিঙ্গা সমস্যার জন্য

০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:১৪ পিএম | নকিব


এসএনএন২৪.কম: রোহিঙ্গা সমস্যার জন্য বাংলাদেশ কখনই দায়ী নয় জানিয়ে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, মিয়ানমারই বরং এই সমস্যা বাংলাদেশের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। 

 শনিবার বেইজিং-এ চীনের কমিউনিস্ট পার্টির আন্তর্জাতিক বিভাগের দফতরে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাথে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আন্তর্জাতিক বিভাগের দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের প্রধান গুয়ো ইয়াজুও-র মন্তব্যের প্রেক্ষিতে তিনি এ কথা বলেন। 

‘রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চীন মিয়ানমারকে আরও উৎসাহিত করবে’ প্রত্যাশা করে মেনন বলেন, মিয়ানমার ও বাংলাদেশের বন্ধু হিসেবে চীন এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করতে পারে।  বাংলাদেশ মানবিক কারণে তাদের আশ্রয় দিয়েছে।  কিন্তু এখন দু’বছর অতিবাহিত হয়ে যাওয়ার পরও এবং তাদের ফিরিয়ে নিতে বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় চুক্তির পরও মায়ানমার তাদের ফিরিয়ে নিচ্ছে না। 

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ কখনও রোহিঙ্গা সমস্যাকে আন্তর্জাতিকরণ করেনি, বরং দ্বিপক্ষীয়ভাবে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেছে।  এটা বরং আন্তর্জাতিক গোষ্ঠীর দায়িত্ব রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে তাদের নিজভূমিতে নিরাপদ পরিবেশে ফিরিয়ে নেয়া। ’

রোহিঙ্গা সমস্যার জরুরি সমধানের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে মেনন বলেন, ইতোমধ্যে রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরের এলাকায় পাহাড় ও বনভূূমি ধ্বংস হওয়ায় পরিবেশ বিপর্যয়ের সৃষ্টি হয়েছে।  সৃষ্টি হয়েছে সামাজিক সমস্যা।  রোহিঙ্গা সমস্যা বাংলাদেশের জন্য হুমকি হয়ে উঠেছে। 

চীনা ভাইস মিনিস্টার, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রত্যাবসনে চীনের অব্যাহত সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে বলেন, সমস্যাটি জটিল এবং এটি যাতে আরও জটিল না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক থেকে এগুতে হবে। 

এই দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির প্রতিনিধি দলের রাশেদ খান মেননের সাথে ছিলেন পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কমরেড আলী আহমেদ এনামুল হক এমরান।  অপরদিকে চীনা ভাইস মিনিস্টারের সঙ্গে ছিলেন মা জুয়োসং হু জিয়াদং এবং তান ওয়েই। 

বৈঠকের শুরুতে রাশেদ খান মেনন চীনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে চীনের প্রেসিডেন্ট ও সিপিসি-র সাধারণ সম্পাদক কমরেড ঝি জিনপিংকে ওয়ার্কার্স পার্টির অভিনন্দন বার্তা হস্তান্তর করেন। 


keya