২:১১ পিএম, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার | | ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

South Asian College

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে

বাঁশখালীতে বিএনপি'র দুই গ্রুপের পৃথক সমাবেশ ; পুলিশের বাঁধা

০৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৯:১৫ পিএম | নিশি


সৈকত আচার্য্য , প্রতিনিধি, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) : বিএনপি’র চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় দুই গ্রুপের পৃথক সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

এদিকে দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাফরুল ইসলামের নেতৃত্বে পৌরসভার গ্রীণ পার্কে মিটিং করার প্রস্তুতি থাকলেও পুলিশী বাঁধায় ওই স্থানে সমাবেশ করতে না পেরে মিছিল সহকারে উপজেলা পরিষদ মাঠে এসে বক্তব্য প্রদান শুরু করে তারা। 

এ সময় অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম বুলবুল, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি আলমগীর কবির চৌধুরী ও কালীপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান চৌধুরী বক্তব্য শেষ করতে না করতেই পুলিশ এসে তাদের মাইকের স্পীকার কেড়ে নেয়।  পরবর্তীতে জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা উত্তর দিকে চলে যায়। 

এ সময় জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর সাথে ছিলেন, বাঁশখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি রাসেল ইকবাল মিয়ার সভাপতিত্বে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম বুলবুল, বাঁশখালী উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলমগীর কবির চৌধুরী, বাঁশখালী উপজেলা বিএনপির সহ সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান চৌধুরী, সাবেক বিএনপি নেতা আনিসুর রহমান, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মোঃ কাশেম চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা বিএনপির মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মোস্তফিজুর রহমান চৌধুরী, বাঁশখালী পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খোরশেদুল আলম, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ফজলুল কাদের, উপজেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক নজরুল ইসলাম চৌধুরী, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক মুবিনুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা বিএনপির প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সম্পাদক আশেক এলাহী সোহেল, চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসিন, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি সৈয়দুল আলম চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা বিএনপি নেতা শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, দক্ষিণ ছাত্রদলের সদস্য শহিদুল আলম ও জামাল উদ্দীন, প্রমুখ। 

অপরদিকে উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক বৈলছড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইব্রাহিম খলিল ও বাঁশখালী পৌরসভার সাবেক মেয়র কামরুল ইসলাম হোছাইনীর নেতৃত্বে পৌরসভার মিয়ার বাজারে এক পথ সভা ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।  সেখানেও তাদের সমর্থিত নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

বাঁশখালীতে বিএনপি’র দুই গ্রুপের পৃথক সমাবেশ ও পুলিশী বাঁধার মুখে পূর্ণাঙ্গ অনুষ্ঠান করতে না পারায় বিএনপি’র নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। 

এ ব্যাপারে দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও বাঁশখালীর সাবেক সাংসদ জাফরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, দেশ নেত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্রের জবাব দেবে বাংলাদেশের জনগণ।  বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের প্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।  দেশনেত্রীকে ভয় পায় বলেই বার বার মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে বেগম জিয়াকে হয়রানি করা হচ্ছে।  এসব হয়রানি ও ষড়ন্ত্রের জবাব দিতে প্রস্তুত বাংলাদেশের জনগণ।  বিএনপি চেয়ারপার্সন তিনবারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। 

এ সরকারের আমলে বিএনপির নেতা কর্মীদের মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে।  আগামী সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।  রাজনৈতিকভাবে বড় দল হিসেবে কর্মীদের মধ্যে যে ভুলভ্রান্তি থাকতে পারে।  হাজার হাজার দলীয় নেতা কর্মীদের উপস্থিতিতে প্রমাণ করে আমাদের দলের মধ্যে কোন বিরোধ নেই, ভেদাভেদও নেই।  তিনি বিএনপি’র অগ্রযাত্রা কেউ রুখতে পারবে না বলে দাবী করেন।