২:২৭ পিএম, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার | | ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১




বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ গ্রেফতার-১

২২ মে ২০১৯, ০৯:১১ পিএম | জাহিদ


মো.মেহেদী হাসান, বরগুনা :  বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক যুবতিকে ধর্ষণ করেছে মিজান মোল্লা নামের দুই জন্তানের জনক।  মিজান মোল্লার ধর্ষণে ওই যুবতি ছয় মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা হলে ঔষধ খাইয়ে গর্ভের বাচ্চা নষ্ট করেছে মিজান এমন অভিযোগ ওই যুবতীর।  পুলিশ মঙ্গলবার রাতে মিজান মোল্লাকে গ্রেফতার করেছে।  বুধবার আমতলী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোঃ সাকিব হোসেন তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। 

জানাগেছে, আমতলী উপজেলার গুলিশাখারী ইউনিয়নের কলাগাছিয়া গ্রামের নুর মোহাম্মদ মোল্লার ছেলে মিজান মোল্লা কলাগাছিয়া বাজারে মোবাইল মেরামতের কাজ করে আসছে।  মোরাইল মেরামতের আড়ালে ওই যুবতির সাথে তার সখ্যতা গড়ে তোলে।  এক পর্যায় মিজান মোল্লা ওই যুবতিকে অনৈতিক প্রস্তাব দেয় কিন্তু তার প্রস্তাবে যুবতি রাজি হয়নি।  গত বছর ৩০ মে মিজান মোল্লা ওই যুবতির বাড়ীতে যায়।  ওই সময় ওই বাড়ীতে কেউ ছিল না।  যুবতিকে একা পেয়ে মিজান মোল্লা তাকে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করে।  

এরপর থেকে প্রায়ই মিজান ওই যুবতিকে ধর্ষণ করে আসছে।  এতে ওই যুবতি অন্তঃস্বত্ত্বা হয়ে পড়ে।  অন্তঃস্বত্ত্বা হওয়ার খবর জেনে মিজান তাৎক্ষনিক ওই যুবতিকে এ বছর ৯ মার্চ আমতলীর মহিষকাটা সিলভি ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়।  ওই সেন্টার যুবতির আল্ট্রাসনোগ্রাম করানো হয়।  আল্ট্রাসনোলজষ্টি বিএম মাসুদ রানা ওই যুবতির আল্ট্রাসনোগ্রাম প্রতিবেদনে চার মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা বলে উল্লেখ করেছেন।  এ আল্ট্রাসনোগ্রামের প্রতিবেদনে সন্তুষ্ট হতে পারেনি মিজান। 

ওই যুবতি বলেন, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মিজান মোল্লা আমাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে।  আমি বিয়ের কথা বললেই আজ-কাল বলে কালক্ষেপন করতো।  আমার পেটে ওর বাচ্চার খবর নিশ্চিত জেনে কৌশলে বিষাক্ত ঔষধ খাইয়ে বাচ্চা নষ্ট করে দিয়েছে।  আমি এর বিচার চাই। 

আমতলী থানার ওসি মোঃ আবুল বাশার বলেন, আসামি মিজান মোল্লাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  তাকে আদালতে পাঠানো হয়।