৮:৫৮ এএম, ২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ১৮ রমজান ১৪৪০




ভাইরাল হলো নিঝুম দ্বীপের গায়ে হলুদ!

২৮ মার্চ ২০১৯, ০৯:৩৬ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : কত ভাবেই তো মানুষ গায়ে হলুদের আয়োজন করে।  সেটি কখনো বাড়ির উঠানে, কখনো কোন ঘর সাজিয়ে।  আবার কখনো কোন কমিউনিটি সেন্টারে।  যার যেমন সামর্থ; তার তেমন আয়োজন।  তবে এ আয়োজন যতই আড়ম্বরপূর্ণ হোক, সেটি সাধারণত হয়ে থাকে চার দেয়ালের মধ্যেই। 

কিন্তু এতসব আইডিয়া বাদ দিয়ে দূরে কোথাও গিয়ে খোলা আকাশের নিচে হলুদ আয়োজনের চিন্তাটা ব্যতিক্রম নিশ্চয়ই।  প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে হারিয়ে জীবনের সুন্দর মুহূর্তটি আরও সুন্দর করে রাখার ভাবনাটি প্রকৃতিপ্রেমীর কাছে খুব স্বাভাবিকভাবে ধরা দেয়।  হলুদের আয়োজনকে স্মরণীয় করে রাখতে তারা হারিয়ে গিয়েছিলেন প্রকৃতির কাছে। 


অভিজিৎ এবং পূজার হলুদ অনুষ্ঠানের সেই ছবিগুলো সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।  অভিজিৎ নন্দি ফটোগ্রাফি করেন।  প্রকৃতির সঙ্গে তার ভালো বন্ধুত্ব।  তার বন্ধুরা মিলে এ ব্যতিক্রমী গায়ে হলুদের আয়োজন করে নিঝুম দ্বীপে।  ২৪ মার্চ সেই অনুষ্ঠানের কিছু ছবি চিত্রগল্প নামে একটি ফেসবুক পেজে আপলোড করা হয়। 

ছবির ক্যাপশনে ছবিগুলোর পেছনের গল্প বলেছেন অভিজিৎ।  ছবির ক্যাপশনের গল্পটি এমন- ‘আসলে এটা আসল হলুদ অনুষ্ঠান যেমনে হয়, তেমনটা না।  প্ল্যান ছিলো সবাই মিলে ঘুরতে যাবো, তখন মাথায় আসলো, তাইলে সবাই মিলে নিছক আনন্দ করার জন্য একটা হলুদ ইভেন্ট করলে কেমন হয়? আমার এমনেও বড় করে আয়োজন করে হলুদের ইচ্ছে ছিল না।  যাক শুরুতে লোকেশন ছিলো বান্দরবান, ঐ হিসেবে সব ঠিকও করা হয়েছিল।  কিন্তু নির্বাচনের সহিংসতায় বান্দরবান শেষ মুহূর্তে এসে বাদ দিতে হয় এবং একদিনের নোটিশে সব চেঞ্জ করে নিঝুম দ্বীপে রওনা। ’


ক্যাপশনে আরও লেখা হয়, ‘এটি কোন কোটি টাকার আয়োজন নয়।  যে যার খরচ নিজেই দিয়ে গেছে।  সবাই যেভাবে এত কষ্ট করে যাত্রার ক্লান্তি নিয়ে কাজ করেছে, তা আসলেই বলে বোঝানো যাবে না।  ইভেন্ট ম্যানেজার তাকমিলাকে বলা হয়েছিল, সাজানোর কাজে মানব সৃষ্ট কোন উপাদান ব্যবহার করা যাবে না।  কিন্তু সেটা ছিল বান্দরবানের জন্য।  পরে নিঝুম দ্বীপে এসেও যে কেমনে কী করে এত অল্প সময়ে এত কিছু ম্যানেজ করে ফেলেছে, আমি পুরাই হা। ’


বিবরণে আরও লেখা আছে, ‘এই ঝুড়িগুলো ধার নেয়া হইছিল, পরে ফেরত দেয়া হইছে।  দোলন ওর ভাঙা পা নিয়ে গেছে, সানি প্রায় পানিতে ডুবে ভিডিও করেছে।  পূজা এই গরমে লেহেঙ্গা পরে জল-কাদায় নেমে ছবি তুলেছে, সাথে আমিও টিমের বাকি সবাই যে যার মতো হেল্প করেছে ছবি তোলা থেকে শুরু করে, ইভেন্টের সব কাজে।  ম্যানেজার হিসেবে প্রান্তের কাজ ছিল নজরকাড়া।  আসলেই বন্ধুরা সবাই একসাথে থাকলে যে কোন জায়গায় আনন্দের বাগান করা সম্ভব। ’


ছবিগুলো তুলেছেন আল আমিন আবু আহমেদ আশরাফ দোলন।  ইভেন্ট ম্যানেজার তাকমিলা ফারিজা ফরিদ।  এ আয়োজন নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে অভিজিৎ তার ফেসবুকে কয়েকটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন।  একটি স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘বিয়ে-শাদি করলে যতটা পারি প্রকৃতি নিয়ে এবং স্বাভাবিক রীতি-নীতি মেনে করার ইচ্ছে ছিল।  বান্দারবানটা মিস করেছি, তাতে কী? নিঝুম দ্বীপও আমাকে কম দেয়নি।  দয়াকরে ঘুরতে গিয়ে প্রকৃতিকে নষ্ট করবেন না। ’