১:১৪ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০১৭, বুধবার | | ২৭ মুহররম ১৪৩৯

South Asian College

ভাগ্য বদল হলো না বাংলাদেশের

০৬ অক্টোবর ২০১৭, ১১:০৮ পিএম | রাহুল


এসএন এন২৪.কমঃ প্রথম টেস্টে বড় হারের পর দ্বিতীয় টেস্টের স্কোয়াডে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন আনে বাংলাদেশ।  মিরাজ, শফিউল, তাসকিনদের বসিয়ে রুবেল, শুভাশিষ ও তাইজুলকে ভেড়ানো হয়।  তবে ভাগ্য বদলায়নি মুশফিকের।  প্রথম দিনেই দক্ষিণ আফ্রিকার দেওয়া রানে চাপা পড়েছে টাইগাররা।  প্রথম দিন শেষে তিন উইকেটে ৪২৮ রান করেছে প্রোটিয়ারা।  প্রথম টেস্টের প্রথম দিনে এক উইকেট হারিয়ে ২৯৮ রান করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা।  বলতেই হচ্ছে, খেলোয়াড় বদলালেও ভাগ্য বদলায়নি সফরকারীদের। 

দ্বিতীয় দিনেও যে মুস্তাফিজ-রুবেলদের কঠিন সময় পার করতে হবে সেটা হয়তো না বললেও চলে।  ৮৯ রান নিয়ে হাশিম আমলা ও ৬২ রান নিয়ে অধিনায়ক দু প্লেসিস রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের প্রথম টেস্টের মতো দ্বিতীয় টেস্টেও আজ বাংলাদেশের শুরুটা ভালো হয়েছিল।  টস জিতেছিলেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।  আজও উইকেট চিনতে ভুল করেন তিনি।  ফলে টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন।  প্রথম টেস্টেও টস জিতে ফিল্ডিং করেছিল বাংলাদেশ। 

ব্যাটিংয়ে নেমেই মুশফিকের সিদ্ধান্তকে ভুল প্রমাণ করেন ডিন এলগার ও এইডেন মার্করাম।  প্রথম উইকেটের জন্য প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয় বাংলাদেশকে।  দিনের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ডিন এলগারকে ফেরান শুভাশিষ রায়।  ৫৪তম ওভারের চতুর্থ ওভারে এলগারকে মুস্তাফিজের তালুবন্দি করেন তিনি।  প্রোটিয়াদের রান তখন ২৪৩।  এলগার করেন ১১৩ রান। 

এরপর আমলাকে নিয়ে এগুতে থাকেন মার্করাম।  তবে জুটিটা বড় হতে দেননি রুবেল হোসেন।  দুর্দান্ত এক ইয়র্কারে মার্করামের স্টাম্প উড়িয়ে দেন তিনি।  প্রথম টেস্টে সেঞ্চুরি মিস করা মার্করাম ১৪৩ রান করে বিদায় নেন। 

খানিক বাদে টেম্বা বাভুমাকেও ফেরান শুভাশিষ।  উইকেটের পেছনে লিটন দাসকে ক্যাচ দেন এই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান।  মাত্র ৭ রান করেন তিনি।  দ্রুত তিন উইকেট তুলে নিয়ে কিছুটা স্বস্তিতে ছিল বাংলাদেশ।  তবে চতুর্থ উইকেট জুটিতে ১৪০ রান তুলে নিয়ে সফরকারীদের আবার খাদের কিনারে ঠেলে দেন হাশিম আমলা ও ফাফ দু প্লেসিস। 

দ্বিতীয় টেস্টের দলে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন এনে দক্ষিণ আফ্রিকার মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ।  ইনজুরির কারণে ছিটকে গেছেন ওপেনার তামিম ইকবাল।  তাঁর পরিবর্তে দলে জায়গা করে নিয়েছেন সৌম্য সরকার।  বোলিং আক্রমণের ক্ষেত্রে এসেছে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন।  দল থেকে বাদ পড়েছেন শফিউল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান মিরাজ।  দলে এসেছেন তাইজুল ইসলাম, রুবেল হোসেন ও শুভাশিষ রায়। 

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে ৩৩৩ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছিল বাংলাদেশ।