৯:৪০ পিএম, ২৪ জুন ২০১৯, সোমবার | | ২০ শাওয়াল ১৪৪০




ভারতকে হারিয়ে প্রতিশোধ নিল অস্ট্রেলিয়া

১৪ মার্চ ২০১৯, ১০:০৮ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম : পাঁচ ম্যাচ সিরিজের শেষ ওয়ান ডেতে বুধবার (১৩ মার্চ) স্বাগতিক ভারতকে ৩৫ রানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।  আর এ জয়ে দীর্ঘ ১০ বছর পর ভারতের মাটিতে সিরিজ জিতলো অজিরা।  সিরিজটি ৩-২ ব্যবধানে জিতেছে ফিঞ্চবাহিনী। 

কিছুদিন আগে এই অস্ট্রেলিয়াকেই তাদের ঘরের মাটিতে হারিয়ে এসেছিল ভারত।  হারের দুঃসহ স্মৃতি নিয়ে ভারত সফরে আসে অজিরা।  জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠলেও টানা দুই ম্যাচ হেরে উল্টো সিরিজ হারের শঙ্কায় পড়ে যায় তারা।  

সেই অবস্থা থেকে টানা তিন ম্যাচ জিতে সিরিজ জিতলো ম্যাক্সওয়েল-ফিঞ্চরা।  সর্বশেষ ২০০৯ সালে ভারতের মাটিতে সিরিজ জয়ের স্বাদ পেয়েছিল অজিরা।  

বুধবার (১৩ মার্চ) দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলায় দিবা-রাত্রির ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে উসমান খাজার সেঞ্চুরিতে ভর করে ২৭২ রান করে অস্ট্রেলিয়া।  জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে ২৩৭ রানে অলআউট হয় ভারত।  

এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে অস্ট্রেলিয়া।  উদ্বোধনীতে অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চের সঙ্গে করেন ৭৬ রানের জুটি।  ২৭ রানে ফিঞ্চ আউট হলে দ্বিতীয় উইকেটে হ্যান্ডসকম্বের সঙ্গে গড়েন ৯৯ রানের জুটি। 

পুরো সিরিজেই দুর্দান্ত ফর্ম দেখানো খাজা এই ম্যাচেও সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন, যা এই সিরিজে তার দ্বিতীয়।  এই সেঞ্চুরি করার পথে বেশ কয়েকটি রেকর্ডেও নাম লিখিয়েছেন তিনি।  

এই নিয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে তিন বা তার বেশিবার ৯০-এর চেয়ে বেশি রান করার কীর্তিতে নাম লিখিয়েছেন তিনি।  এর আগে ভারতের মাটিতে ৫০ ওভারের ফরম্যাটে চারবার ৯০-এর চেয়ে বেশি স্কোর করেছিলেন ডি ভিলিয়ার্স ও ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি।  ভারতের বিপক্ষ চার বা তার বেশি ফিফটির রেকর্ড আছে ক্রিস গেইলের দখলেও। 

ভারতের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে সর্বোচ্চ রানের মালিক এখন উসমান খাজা।  এর আগে এই রেকর্ড ছিল কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের দখলে।  এছাড়া ভারতের মাটিতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডে সাবেক প্রোটিয়া অধিনায়ক ডি ভিলিয়ার্সকে পেছনে ফেলে দিয়েছেন তিনি।  

পাঁচ ম্যাচে যথাক্রমে ৫০, ৩৮, ১০৪, ৯১ ও ১০০ রান মিলিয়ে মোট ৩৮৩ রান করেছেন খাজা।  এই রান করার পথে তিনি ২০১৫ সালে গড়া ডি ভিলিয়ার্সের গড়া ৩৫৩ রানের রেকর্ড ভেঙেছেন তিনি।  এছাড়া ভারতের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে উইলিয়ামসনের ৩৬১ রানের রেকর্ডও ছাড়িয়ে গেছেন। 

সেঞ্চুরির পর নিজের ইনিংসটা লম্বা করতে পারেননি।  ভুবনেশ্বর কুমারের বলে ক্যাচ তুলে দেয়ার আগে ১০৬ বলে ১০টি চার ও দুটি ছক্কায় ১০০ রান করে ফেরেন উসমান খাজা।  পাঁচ ম্যাচ সিরিজে দুই সেঞ্চুরিতে ৩৮৩ রান করেন তিনি। 

সেঞ্চুরি করে খাজা আউট হওয়ার পর আর কেউই প্রত্যাশিত ব্যাটিং করতে পারেননি।  এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া।  এক রানে ফেরেন গ্ল্যান ম্যাক্সওয়েল।  আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি (১১৭) করা পিটার হ্যান্ডসকম্ব এদিন ফেরেন ৬০ বলে ৫২ রান করে। 

ইনিংসের শেষ দিকে আর কেউই প্রতিরোধ গড়তে পারেননি।  ২০ রান করে ফেরেন মার্কু স্টইনিস ও টার্নার।  ১৫ রান করেন পেট কামিন্স।  শেষ দিকে ২১ বলে ২৯ রান করে রান আউট হন রিচার্ডসন।  অস্ট্রেলিয়া থামে ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৭২ রান করে। 

টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় ভারত।  দলীয় ১৫ রানেই সাজঘরে ফেরেন আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করার ওপেনার শিখর ধাওয়ান।  দলীয় ৬৮ রানে ফেরেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি।  এরপর নিয়মতি বিরতিতে উকেট হারিয়ে চাপের মধ্যে পড়ে যায় স্বাগতিক ভারত। 

সপ্তম উইকেট জুটিতে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন কেদার যাদব ও ভুবনেশ্বর কুমার।  তারা ৯১ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের স্বপ্ন দেখান।  জয়ের জন্য শেষ দিকে ভারতের প্রয়োজন ২৪ বলে ৫০ রান।  হাতে ছিল ৪ উইকেট। 

খেলার এমন অবস্থায় ভারতকে চেপে ধরেন পেট কামিন্স।  তার শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন ৫৪ বলে ৪৬ রান করা ভুবনেশ্বর। ঠিক পরের ওভারের প্রথম বলে আউট হন একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলকে জয়ের স্বপ্ন দেখানো কেদার যাদব।  রিচার্ডসনের বলে ম্যাক্সওয়েলের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন তিনি। 

শেষ দিকে রান রেট বেড়ে যাওয়ায় মোহাম্মদ সামি এবং কুলদীপ যাদবের কিছুই করার ছিল না।  তড়িঘড়ি রান তুলতে গিয়ে ৯ রানে আউট হন কুলদীপ।  শেষ পর্যন্ত ২৩৭ রানে অলআউট হয় ভারত।  ৩৫ রানের জয়ে সিরিজ নিশ্চিত করে অস্ট্রেলিয়া।