৫:৩৬ পিএম, ২০ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০




মাথায় টাক পড়ে যে কারণে

০৬ নভেম্বর ২০১৮, ১১:৩৯ এএম | জাহিদ


এসএনএন২৪.কম :  বর্তমানে চুলপড়া সমস্যা একটি কমন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।  বয়সের ভেদাভেদ নেই, এটি যেকোন বয়সেই হতে পারে।  কি পুরুষ কি নারী অথবা কিশোর-কিশোরী।  চুলপড়া সমস্যা কোনো রোগ নয়।  অন্য যে কোনো রোগ অথবা সমস্যা থেকে চুল পড়তে পারে। 

মেল প্যাটার্ন বল্ডনেস হচ্ছে পুরুষের চুলপড়া সমস্যার অন্যতম একটি ধরন।  সাধারণত জিন ও পুরুষ সেক্স হরমোন হিসেবে খ্যাত টেস্টেসটেরনই এর জন্য দায়ী। 

এ ধরনের চুলপড়া সমস্যাকে এড্রোজেনেটিক এলোপেসিয়া বলা হয়।  এ ধরনের চুলপড়া সমস্যা বুঝতে বা ডায়াগনসিস করতে খুব একটা সমস্যা হয় না। 

হেয়ারলাইন বা কপালের ওপরের অংশের চুল ফাঁকা হয়ে যায় এবং মাথার উপর ভাগের অংশে চুল কমে যায়।  এ ক্ষেত্রে চুলপড়ার ধরন দেখেই বোঝা যায়  এটা হরমোনাল বা বংশগত কারণে হচ্ছে। 

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পুরুষ হরমোনজনিত কারণে চুলপড়া সমস্যার কোন ভালো চিকিৎসা নেই।  কারণ হরমোন পরিবর্তন করে চুলপড়া সমস্যার চিকিৎসা যৌক্তিক নয়। 

তবে মেলপ্যাটার্ন বল্ডনেস বা পুরুষের চুলপড়া সমস্যার ক্ষেত্রে মার্কিন ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্র্রেশন এ পর্যন্ত দুটি ওষুধ অনুমোদন দিয়েছে। 

আশার কথা— এ দুটি ওষুধই এখন বাংলাদেশে তৈরি হচ্ছে।  এর একটি হচ্ছে মিনক্সিডিল।  মিনক্সিডিল হচ্ছে একধরনের লোশন বা সলিউশন যা সরাসরি মাথার ত্বকে ব্যবহার করতে হয়।  এই ওষুধটি হেয়ার ফলিকিউল স্টিমুলেট করে এবং চুল গজাতে সাহায্য করে। 

এ ছাড়া এড্রোজেনেটিক এলোপেসিয়ায় আর একটি ওষুধ ব্যবহার করা হয়।  এটি হচ্ছে ফিনাস্টেরাইড।  এটা খাওয়ার ওষুধ।  দৈনিক ১ মিলিগ্রাম করে এ ধরনের ওষুধ সেবন বাঞ্ছনীয়।  এই ওষুধটি মিনক্সিডিল অপেক্ষা ভালো এবং চুলপড়া কমাতে সাহায্য করে।  পাশাপাশি চুল গজাতেও কার্যকর। 

তবে একটি কথা মনে রাখতে হবে— শুধু ওষুধ দিয়েই চুলপড়া সমস্যার সমাধান হবে না।  চুলপড়া সমস্যার প্রকৃত কারণ জেনে চিকিৎসার পাশাপাশি যথাযথ পরিচর্যা করতে হবে। 

আর রোগীকে আস্থাশীল করতে না পারলে রোগীও দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা নিতে উৎসাহ হারিয়ে ফেলতে পারে।  তাই চুলপড়া সমস্যার চিকিৎসা যত বেশি জরুরি, তার চেয়ে বেশি জরুরি রোগীর আস্থা ও ধৈর্য।  কারণ ধৈর্য ধরে যথাযথ চিকিৎসা নিতে পারলে অবশ্যই উপকার পাওয়া যাবে। 



keya